izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন

Election-bd-upzila-2019-ck.jpg

মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া(১০ ফেব্রুয়ারি) :: সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেলেন আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী।

রবিবার দুপুরে আওয়ামীলীগের নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ড দলীয় প্রার্থী দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী নিজেই।

ফলে আগামী ১৮ মার্চ অনুষ্টিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে লড়বেন তিনি।

আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়া গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী ফাাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে তিনবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। আসছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে তিনি আগেই ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন।

গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী দুইবার উপজেলা ইউপি চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি ছিলেন। তিনি বর্তমানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পূর্বে উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়কের দায়িত্বও পালন করেন।

উপজেলা পরিষদের নির্বাচনকে সামনে রেখে ডজন খানেক আওয়ামীলীগ নেতা চেয়ারম্যান পদে লড়তে কয়েক মাস ধরে মাঠে ময়দানে গণসংযোগ করে আসছিল। পরে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্দেশনায় সমন্বয় সভা করে একক প্রার্থীর নাম পাঠাতে না পারলেও কেন্দ্রে তিনজনের নাম পাঠানো হয়।

তারা হলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি জেলা পরিষদের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম লিটু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী।

কেন্দ্রে নাম পাঠানোর পর ওই তিনজনসহ মোট ৬জন আওয়ামীলীগের মনোনয়নপত্র ক্রয় করে জমা দেন। তারা সবাই বেশক’দিন ঢাকায় অবস্থান করে দলীয় মনোনয়ন পেতে লবিং করেন।

তাদের মধ্যে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি তা নিয়ে চকরিয়ায় চলে ব্যাপক আলোচনা ও চুলছেড়া বিশ্লেষণ। অবশেষে সকল জল্পনার অবসান ঘটিয়ে নৌকার মাঝি হলেন আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী।

মুঠোফোনে কথা হয় গিয়াসউদ্দিন চৌধুরীর সাথে। তিনি বলেন, আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এখন মনোনয়ন পত্রের কপি নিতে দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের কার্যালয়ে।

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী বলেন, দলীয় পদে থাকায় নেতাকর্মীদের সুখে-দুঃখে সবসময় কাছে ছিলাম। পাশাপাশি পুরো উপজেলায় সাধ্যমত সাধারণ মানুষকে সহায়তার চেষ্টা করেছি।

ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে তিনবার নির্বাচিত হয়ে বৈষম্যহীন জনসেবা ও উন্নয়ন করেছি। আশাকরি দলীয় নেতাকর্মীসহ পুরো উপজেলার ভোটাররা নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে আমাকে আরো বড় পরিসরে জনসেবা করার সুযোগ দেবেন আমাকে।

Share this post

PinIt
scroll to top