রামুতে লুটকৃত মুঠোফোন ও ব্যবহৃত অস্ত্রসহ ২ ডাকাত গ্রেফতার

20190212_152610.jpg

সোয়েব সাঈদ,রামু(১২ ফেব্রুয়ারী) :: কক্সবাজারের রামুতে চাঞ্চল্যকর ডাকাতির ঘটনায় লুটকৃত মুঠোফোন এবং ব্যবহৃত অস্ত্রসহ ২ দূর্ধর্ষ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চরপাড়া এলাকার উজির আলীর ছেলে নুরুল আজিম (২২) ও কক্সবাজার সদর উপজেলার পূর্ব খরুলিয়া খামারপাড়া এলাকার মৃত মিয়া হোসেনের ছেলে সুলতান আহমদ (৪০)।

রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল মনসুর জানিয়েছেন, গ্রেফতার হওয়া ডাকাত নুরুল আজিম ও সুলতান আহমদের নেতৃত্বে ২০১৮ সালের ৬ নভেম্বর রামুর খুনিয়াপালং ইউনিয়নের দারিয়ারদিঘী এলাকায় আলী আহমদের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। দূর্ধর্ষ ডাকাতদল সেদিন গৃহকর্তার ছেলে আরিফের হাতে গুলি করে স্বর্ণালংকার, ৫টি মোবাইল ফোন সেট, নগদ টাকা সহ ৫ লাখ টাকার মালামাল লুট করে।

এ ঘটনায় ১৩ নভেম্বর গৃহকর্তা আলী আহমদ বাদী হয়ে নুরুল ইসলাম সহ অজ্ঞাতনামা ৬জন ডাকাতের বিরুদ্ধে রামু থানায় মামলা (নং-১৩) করেন।

ওসি আবুল মনসুর আরো জানান, সোমবার পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। এনিয়ে এ ঘটনায় ৮জনকে গ্রেফতার করলো পুলিশ। আটককৃতদের বিরুদ্ধে আরো একাধিক মামলা ও বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িত থাকার প্রমান রয়েছে। এর মধ্যে সুলতান আহমদের নামে ডাকাতি-চুরির অভিযোগে ৩টি মামলা রয়েছে।

জানা গেছে, সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) ভোরে রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চরপাড়া এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল মনসুরের নেতৃত্বে ওসি (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান, উপ-পরিদর্শক মংছাই মারমা, আনোয়ার হোসেন ও মোর্শেদ আলম এ অভিযানে অংশ নেন।

পুলিশ জানিয়েছেন, গ্রেফতার হওয়া ডাকাত নুরুল আজিমের কাছ থেকে ডাকাতির ঘটনায় লুট হওয়া মোবাইল ফোন সেট এবং ডাকাত সুলতান আহমদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক রামুর ঈদগড় এলাকার গহীন অরণ্য থেকে ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত দেশীয় বন্দুক উদ্ধার করা হয়।

রামু থানার ওসি (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, লুট হওয়া ও ব্যবহৃত মালামাল-অস্ত্রসহ দূর্ধর্ষ ২ ডাকাতকে আটকের মাধ্যমে চাঞ্চল্যকর এ ডাকাতির ঘটনার রহস্য উদঘাটন হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িত সকল ডাকাতকে আইনের আওতায় আনা হবে। চুরি-ডাকাতিসহ অপরাধ কর্মকান্ড বন্ধে রামু থানা পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। অপরাধী যত বড়ই হোক, কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। তিনি অপরাধীদের সম্পর্কে তথ্য দিয়ে পুলিশ প্রশাসনকে সহযোগিতা করার জন্য রামুবাসীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

এদিকে রামুর খুনিয়াপালংয়ে চাঞ্চল্যকর ডাকাতির ঘটনায় লুট হওয়া মোবাইল ফোন সেট এবং ডাকাতিতে ব্যবহৃত অস্ত্রসহ দুই ডাকাত আটকের খবরে এলাকায় জনমনে স্বস্থি ফিরে এসেছে। ভুক্তভোগী জনতা এ জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে এবং সহযোগি অন্যান্য ডাকাতদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন।

Share this post

PinIt
scroll to top