পেকুয়ায় স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ ও গাছ জব্দ করল বনবিভাগ

pekua-lnews-pn.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(২০ ফেব্রুয়ারী) :: পেকুয়ায় পৃথক স্থানে অভিযান চালালো বনবিভাগ। এ সময় উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের মাঝেরঘোনায় রিজার্ভের জায়গায় অবৈধ পাকা স্থাপনা নির্মাণ কাজ বন্ধ করা হয়েছে। টইটং ইউনিয়নে সোনাইছড়ি থেকে দুটি মাদার ট্রি গর্জন গাছ জব্দ করে।

২০ ফেব্রুয়ারী (বুধবার) দুপুর দেড়টার দিকে ও বেলা আড়াইটার দিকে পৃথক স্থানে এ অভিযান জোরদার করেছে বনবিভাগ। চট্রগ্রাম দক্ষিন বনবিভাগের বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদুল গফুর ভূইয়ার নেতৃত্বে বনবিভাগ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালনা করে।

বনবিভাগ সুত্র জানায়, ওই দিন দুপুরে শিলখালী ইউনিয়নে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় মাঝেরঘোনা নামক স্থানে বনবিভাগের মালিকানাধীন রিজার্ভ জায়গায় একটি চক্র পাহাড়ের টিলা কেটে বিশাল পরিসরে বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করছিলেন। সেটি উচ্ছেদ করতে বনবিভাগ ওই স্থানে অভিযান চালায়। এ সময় রেঞ্জ কর্মকর্তাসহ বনবিভাগের লোকজন পাকা ভবন স্থাপন কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। জামাল হোসেন নামক ব্যক্তি রিজার্ভ জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ করছিলেন।

অপরদিকে একইদিন বেলা আড়াইটার দিকে টইটং ইউনিয়নের সোনাইছড়ি ছাগলখাইয়া ব্রীজ নামক স্থান থেকে দুটি মাঝারি আকারের গর্জন গাছ জব্দ করে। এবিসি সড়কের ওই পয়েন্ট থেকে গাছ দুটি জব্দ করেছে। বনবিভাগ জানায়, গাছ চোর সিন্ডিকেট সড়ক দিযে গাছ দুটি পাচার করছিলেন। খবর পেয়ে তারা ওই স্থান থেকে এ গাছ দুটি জব্দ করে।

রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদুল গফুর ভূইয়া জানায়, শিলখালীতে আমরা অভিযান চালিয়েছি। ভবন নির্র্মাণকাজ ঠেকিয়ে দিয়েছে। এরপরও অমান্য করা হলে আইনগত ব্যবস্থাত নেওয়া হবে। দুটি গাছ ও ৫ বস্তা কয়লা জব্দ করেছি। কাঠ পুুঁড়িয়ে একটি চক্র পাহাড়ে কয়লা উৎপাদন করে। আমরা গোপন সুত্র থেকে জানার পর এ সব কয়লা জব্দ করেছি।

Share this post

PinIt
scroll to top