টেকনাফের নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পে রোহিঙ্গা দূবৃর্ত্তদের তান্ডব : ডাঃ হামিদ ও হাসান গুলিবিদ্ধ

Teknaf-Pic-C-1-22-02-19.jpg

হুমায়ূন রশিদ,টেকনাফ(২২ ফেব্রুয়ারী) :: টেকনাফের নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের শালবাগান এলাকায় রোহিঙ্গা দূবৃর্ত্তরা তান্ডব চালিয়েছে। এই স্বশস্ত্র গুলিতে পল্লী চিকিৎসক হামিদ ও কমিটি হাসান নামে দুই রোহিঙ্গা গুলিবিদ্ধ হলেও একজনকে উদ্ধার করে মুমূর্ষাবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অপরজনকে উদ্ধার অভিযান চলছে।

জানা যায়, ২২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা পৌনে ৭টারদিকে নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের একদল স্বশস্ত্র রোহিঙ্গা গ্রুপ অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে শালবাগানে নিজ ডিসপেনসারীতে কর্মরত অবস্থায় নয়াপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ হোছনের পুত্র ডাঃ হামিদ (৪১) কে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পাহাড়ের পাদদেশে নিয়ে যায়। এরপর গোলাগুলির শব্দ শুনে লোকজন আতংকিত হয়ে উঠে। এরপর থেকে ডাঃ হামিদকে মেরে ফেলার গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

এই ব্যাপারে ডাঃ হামিদের বোন তাসনিম ও স্ত্রী ফাতেমা জানান,সন্ধ্যায় কোন কারণ ছাড়াই রোহিঙ্গা দূবৃর্ত্তরা পল্লী চিকিৎসক (ডাঃ) হামিদকে অপহরণ করে পাহাড়ে নিয়ে যায়। ভাল-মন্দ খবর না পেয়ে চরম উৎকণ্ঠায় রয়েছে। তবে ক্যাম্পে নিয়োজিত আইন-শৃংখলা ও নিরাপত্তা বাহিনী হামিদকে উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

অপরদিকে একই সময়ে সি-ব্লকের মোঃ সালামের পুত্র হাসান আলী (৩২) প্রকাশ কমিটি হাসানকে ধরে পাহাড়ের পাদদেশে নিয়ে কয়েক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। এতে হাসান আলীর শরীরে ২টি বুলেট বিদ্ধ হয়।

স্থানীয় রোহিঙ্গা ও ক্যাম্পে নিয়োজিত আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে মূমুর্ষ হাসানকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।

এই ব্যাপারে নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্প পুলিশ পরিদর্শক আব্দুস সালাম,হাসানের ডান ও বাম হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার প্রেরণের সত্যতা স্বীকার করেন।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পল্লী চিকিৎসক হামিদকে উদ্ধার অভিযান এবং গুলিবিদ্ধ হাসানকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এই ঘটনার পর পরই সাধারণ রোহিঙ্গারা আতংকিত হয়ে উঠে।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri