পেকুয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়ন ফরম জমা

-প্রার্থী-জাহাঙ্গীর-অালম.jpg

মো: ফারুক,পেকুয়া(২৬ ফেব্রুয়ারি) :: পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পেকুয়া উপজেলা থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন পেকুয়া উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম। ২৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার বিকালে দুই সহ¯্রাধিক দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয় জনগণ নিয়ে উৎসব মুখর পরিবেশে মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

এদিকে জাহাঙ্গীর আলম নৌকার মনোনয়ন না পাওয়ার পর থেকে তার কর্মী সমর্থকরা কলা গাছ রোপন করে প্রতিবাদ শুরু করে। উপজেলার পেকুয়া চৌমহুনী, পেকুয়া বাজার, উজানটিয়ার সোনালী বাজার, মগনামা কাজি মার্কেট, টইটংয়ের ধনিয়াকাটা, হাজি বাজার, টইটং বাজার, শিলখালীর জনতা বাজার, স্কুল ষ্টেশন, বারবাকিয়া বাজার, রাজাখালীর সুন্দরী পাড়াসহ আরো বেশ কয়েকটি স্থানে তার কর্মী সমর্থকরা কলা গাছ রোপন করে তাকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার জন্য দাবী জানিয়ে আসছিল।

মঙ্গলবার দুপুর থেকেই উপজেলার ৭ ইউনিয়ন থেকে বাংলাদেশ আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীসহ স্থানীয় এলাকাবাসী গাড়ি শোভাযাত্রা নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী যুবলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের বাসভবনের সামনে উপস্থিত হন। একপর্যায়ে ব্যাপক কর্মী সমর্থক তার সমর্থনে রাস্তায় জড়ো হন। হাজার হাজার জনতা কলা গাছ হাতে নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমকে নিয়ে উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দেন। পরে বিশাল কর্মী সমর্থক কলা গাছ স্লোগান দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিনকে সাথে নিয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

সংক্ষিপ্ত সভায় যুবলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বলেন, নৌকার প্রার্থী জনবিছিন্ন প্রার্থী। তাকে দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয় জনগণ প্রত্যাখান করে কলা গাছ নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়েছে। যার কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। আজকে কর্মী সমর্থক ও স্থানীয় জনগণ রাস্তায় থেকে নৌকা প্রার্থীর কিছু উৎশৃংখল যুবক আমার সমর্থককে কাপুরুষের মত পিছন থেকে আক্রমণ করেছে। আমি এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ছাড়াও অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আ’লীগের প্রভাবশালী সদস্য এসএম গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান এম শহিদুল্লাহ বিএ, স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল শামা শামীম, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী মফিজুর রহমান, মগনামা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা মো: ইউনুছ চৌধুরী, আ’লীগ নেতা সাইফুউদ্দিন খালেদ, যুবলীগ সহসভাপতি শফিউল আলম, উপজেলা ছাত্রলীগের সি:যুগ্ম-সম্পাদক ওসমাণ সরওয়ার বাপ্পিসহ পেকুয়া উপজেলা আ’লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী, ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

পেকুয়ায় ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান ফরায়েজি

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সি:সহসভাপতি ঘাতকের হাতে নির্মমভাবে নিহত উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি আ.ক.ম শাহাব উদ্দিন ফরায়েজির সুযোগ্য পুত্র মেহেদী হাসান ফরায়েজি। মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) তার কর্মী সমর্থক নিয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলামের হাতে মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

এর আগে দলীয় কর্মী সমর্থক ও স্থানীয় এলাকাবাসী নিয়ে ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেন। মনোনয়ন ফরম নেওয়ার পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তাকে বিজয়ী করতে স্থানীয় এলাকাবাসী কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও তার পিতার সৎ রাজনীতি ও সৎ মানুষ হিসাবে অধিক পরিচিতিই তাকে ভাইস-চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী করতে দলীয় নেতাকর্মীরা একজোট হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন।

এদিকে মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার পর সাংবাদিকদের বলেন, আমার পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে সৎ রাজনীতি করে গেছেন। তাকে নির্মমভাবে হত্যা করার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় আ’লীগ নেতৃবৃন্দের সহযোগিতা পেয়েছি। পিতার মৃত্যুর পর এলাকাবাসীরও অনেক সহযোগিতা পেয়েছি। এবার সকলের সহযোগিতা নিয়ে ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছি। সকলের দোয়ায় বিজয় ইনশাল্লাহ।

এসময় টইটং ইউপির চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী, ইউপি সদস্য শাহাব উদ্দিনসহ স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

পেকুয়ায় ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন ছাত্রলীগ নেতা মো: কায়সার উদ্দিন

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো: কায়সার উদ্দিন। সেই পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের টুঙ্গিপাড়া খ্যাত পূর্ব বিলহাছুরা এলাকার আকতার আহেমেদের পুত্র।

মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) তার কর্মী সমর্থক নিয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলামের হাতে মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

এর আগে দলীয় কর্মী সমর্থক ও স্থানীয় এলাকাবাসী নিয়ে গত সোমবার ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেন। মনোনয়ন ফরম নেওয়ার পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তাকে বিজয়ী করতে উৎসব মুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষিত ও ভদ্র ছেলে হিসাবে অধিক পরিচিতি লাভ করায় সাধারণ ভোটারদের মাঝেও তার ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এছাড়াও প্রচার প্রচারণায় অন্যান্য প্রার্থীর চেয়ে অনেকাংশে এগিয়ে যাওয়ায় ভোটের ক্ষেত্রে অনেকাংশে এগিয়ে রয়েছে বলে সাধারণ ভোটারেরা মনে করেন।

এদিকে মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার পর ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: কায়সার উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, স্কুল জীবন থেকে বাংলাদেশ আ’লীগের ভাতৃপ্রতীম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হয়ে রাজনীতি করে যাচ্ছি। বিএনপি-জামাতের ক্যাড়ার কর্তৃক হামলা মামলা ও শত নির্যাতনের পরও রাজনীতির আদর্শ থেকে সরে যায়নি। ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে নিজেকে তিলতিল করে তৈরি করেছি জনগণের সেবা করার জন্য। এলাকাবাসী ও দলীয় নেতাকর্মীদের চাওয়ায় ভাইস-চেয়ারম্যান হয়ে এলাকায় এসেছি। সকলের দোয়ায় বিজয় নিশ্চিত করতে কাজ করে যাব। এসময় স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri