izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কঠিন পরীক্ষায় জুভেন্টাস আর রোনালদো

juv-rn.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১২ মার্চ) :: চ্যাম্পিয়ন্স লিগকে তিন মৌসুম ধরে নিজের সম্পত্তি বানিয়ে নিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে টানা তিন এবং সব মিলিয়ে শেষ পাঁচবারের চারবারই শিরোপা ঘরে তুলেছিল লস ব্লাঙ্কোসরা। রোনালদোবিহীন রিয়াল এরই মধ্যে শিরোপার লড়াই থেকে ছিটকে গেছে। প্রশ্ন একটাই, রোনালদোকে ছাড়া রিয়াল পারেনি, রিয়ালকে ছাড়া রোনালদো পারবেন তো?

কাজটা এরই মধ্যে বেশ কঠিন হয়ে গেছে রোনালদোর জন্য। তার দল জুভেন্টাস এরই মধ্যে পিছিয়ে আছে। ঘুরে দাঁড়াতে হলে এখন দারুণ কিছুই করতে হবে। প্রতিপক্ষ অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের মাঠে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে জুভেন্টাস হেরে এসেছে ০-২ গোলের ব্যবধানে। তুরিনে বড় ব্যবধানে জিততে না পারলে হয়তো রিয়ালের পথেই হাঁটতে হবে রোনালদোকে। শিরোপার অপেক্ষা বাড়বে জুভেন্টাসেরও।

১২ মার্চ আরেক ম্যাচে ইতিহাদে জার্মান ক্লাব শালকের মুখোমুখি হবে ম্যানচেস্টার সিটি। প্রথম লেগে সিটিকে কাঁপিয়ে শেষ পর্যন্ত ২-৩ গোলে হারে শালকে। তবে দ্বিতীয় লেগে জিতে পরের পর্বে যাওয়াটা শালকের জন্য বেশ কঠিনই হবে। এরই মধ্যে একটি জয়ের সঙ্গে তিনটি অ্যাওয়ে গোলও আছে প্রিমিয়ার লিগে শীর্ষে থাকা সিটির দখলে। আজ এ দুই ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ সময় রাত ২টায়।

পিছিয়ে থাকলেও হাল ছাড়ার সুযোগ নেই ‘তুরিনের বুড়ি’দের। রোনালদো ছাড়াও দৃশ্যপট বদলে দিতে পারে এমন একাধিক তারকার উপস্থিতি আছে দলে। পাশাপাশি ঘুরে দাঁড়ানোর নজির তো চলমান চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও আছে। প্রথম লেগে হেরেও পরের পর্বের প্রত্যাবর্তনের রূপকথা লিখেছে আয়াক্স, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও এফসি পোর্তো।

এ তিন দলের কাছ থেকেও চাইলে অনুপ্রেরণা নিতে পারে ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যাল্লেগ্রির দল। তবে জুভেন্টাসের জন্য কাজটা কঠিন করে তুলতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েই তুরিনে আসবে অ্যাতলেটিকো। শক্তিশালী ডিফেন্সের জন্য এমনিতেই সুখ্যাতি আছে দিয়েগো সিমিওনের দলের। দুই গোলে এগিয়ে থাকায় নিজেদের দুর্গ সুরক্ষায় আরো বেশি মনোযোগী থাকবে দিয়েগো গডিন ও হোসে হিমেনেসরা।

বলা যায়, তুরিনে মূল লড়াইটা হবে জুভেন্টাসের আক্রমণ বনাম অ্যাতলেটিকোর ডিফেন্সের মাঝে। সেই লড়াইয়ে যারা নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে পারবে, তারাই চলে যাবে পরের রাউন্ডে। অবশ্য অতিরিক্ত আগ্রাসী মনোভাবও কাল হতে পারে জুভেন্টাসের জন্য। প্রতিপক্ষের আক্রমণ ভাগে যে আতোয়াঁন গ্রিজম্যান-আলভারো মোরাতারা রয়েছেন। যেকোনো পরিস্থিতিতে ম্যাচের গতিপথ পাল্টে দিতে পারেন তারা। আর শুরুতে গোল হজম করে ফেললে জুভেন্টাসের জন্য কাজটা আরো কঠিন হয়ে যাবে।

এছাড়া প্রথম লেগেই নিজেদের গোল করার দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছেন অ্যাতলেটিকোর ডিফেন্ডাররাও। জুভেন্টাসের হজম করা দুই গোলের দুটিই এসেছে দুই ডিফেন্ডার হিমেনেস ও গডিনের কাছ থেকে। এ তথ্যটিই আবার জুভদের ডিফেন্সের দুর্বলতাকে সামনে নিয়ে আসে। তাই সবমিলিয়ে বেশ সতর্ক হয়ে মাঠে নামতে হবে ইতালিয়ান টপারদের। নয়তো ঘরের মাঠেই বিদায়ের কষ্টে পুড়তে হবে তাদের।

এ ম্যাচ জিততে রোনালদোর দিকেই তাকিয়ে থাকবে জুভ সমর্থকরা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতানোর জন্যই দলে ভেড়ানো হয়েছে তাকে। এরই মধ্যে অবশ্য দলকে উজ্জীবিত হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন রোনালদো। কঠিন এ কাজ সম্পন্ন করতে সমর্থকদেরও পাশে থাকতে বলেন ‘সিআর সেভেন’। শেষ তিনবার শিরোপা উঁচিয়ে ধরা রোনালদো বলেন, ‘আমরা প্রথম লেগে ০-২ গোলের হার আশা করিনি। কিন্তু যেকোনো কিছু হতে পারে। নিজেদের মাঠে সমর্থকদের সামনে আমরা এখন দারুণভাবে ফিরে আসতে চাই।’ এ সময় জয়ের জন্য নিজেরা আত্মবিশ্বাসী আছেন বলেও মন্তব্য করেন রোনালদো, ‘দারুণ একটি ম্যাচ খেলতে দল আত্মবিশ্বাসী। আমি নিজেও বেশ আত্মবিশ্বাসী। দর্শকদের উদ্দেশে আমি বলতে চাই, ইতিবাচক চিন্তা করুন, আসুন বিশ্বাস করি। ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য প্রস্তুত হই।’ বিবিসি, এএফপি

Share this post

PinIt
scroll to top