চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে লিভারপুল-বার্সেলোনা : বায়ার্নের বিদায়

lb.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১৪ মার্চ) :: জার্মান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে পৌঁছে গেল লিভারপুল৷ দুই লেগ মিলিয়ে গতবারের রানার্সরা জিতল ১-৩ ব্যবধানে৷ প্রথম লেগে গোলশূন্য ড্র’য়ে ম্যাচ শেষ হয়েছিল৷ বৃহস্পতিবার অ্যাওয়ে ম্যাচে লিভারপুল জিতল ৩-১ ব্যবধানে৷

ম্যাচের চারটি গোলই এল লিভারপুলের ফুটবলারদের পা থেকে৷ ঘরের মাঠে প্রথমার্ধের ২৬ মিনিটেই পিছিয়ে পরে বায়ার্ন৷ সুইপার কিপার ম্যানুয়েল নয়্যার গোল বাঁচাতে বক্সের ভিতর ঝুঁকি নিয়ে এগিয়ে এলে, তাঁকে বোকা বানিয়ে বল জালে ঠেলে দেন সাদিও মানে৷ ১-০ এগিয়ে যায় লিভারপুল৷

এরপর ৩৯ মিনিটে রক্ষণের জটলা থেকে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালে ঠেলে দেন জোয়েল মাটিপ৷ লিভারপুলের এই আত্মঘাতী গোলেই ম্যাচে সমতায় ফেরে বায়ার্ন৷

১-১ অবস্থায় সাজঘর থেকে ফিরে দ্বিতীয়ার্ধে এরপর পুরোটাই লিভারপুল শো৷ বায়ার্নের জালে দু’বার বল জড়িয়ে ম্যাচ জিতে কোয়ার্টারের টিকিট পাকা করে নেয় রেডসরা৷ ৬৯ মিনিটে এবার জেমস মিলনারের কর্ণার থেকে পাওয়া বলে লাফিয়ে দুর্দান্ত হেডে গোল করেন ভার্জিল ভ্যান ডিক। নির্ধারিত সময়ের ৬ মিনিট আগে(৮৪মি) বায়ার্ন মিউনিখের কফিনে শেষ পেরেক পুঁতে দেন সাদিও মানে৷ ডি- বক্সের সামনের থেকে মিশরীয় সালাহ’র মাপা সেন্টারে মাথা ঠেকিয়ে লিভারপুলকে ৩-১ এগিয়ে দেন মানে৷  ম্যাচে  সেনেগাল ফুটবলারের এটি দ্বিতীয় গোল৷

বার্সাকে টানা ১২বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে তুললেন মেসি

রূপকথার লড়াই ফিরিয়ে দিয়ে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো জুভেন্তাসকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে নিয়ে গিয়েছেন আগের দিন৷ অতটা কঠিন পরিস্থিতি থেকে না হলেও ছিটকে যাওয়ার ভ্রূকুটি সঙ্গে নিয়ে মাঠে নামা বার্সেলোনাকে ছন্দবদ্ধ ফুটবলে দাপুটে জয় এনে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে তুললেন লিওনেল মেসি৷

যদিও তুরিনে রোনাল্ডো কার্যত একার কাঁধে টেনে নিয়ে যান ওল্ড লেডিদের৷ মেসি এক্ষেত্রে কাতালান ক্লাবকে পরের রাউন্ডে তুলে নিয়ে যেতে পাশে পেলেন কুটিনহো, পিকে, দেম্বেলেদের৷ অলিম্পিক লিয়ঁর ঘরের মাঠে গোলশূন্য ড্র করে আসা বার্সেলোনা ন্যু ক্যাম্পে ফরাসি দলটিকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দেয় এবং রেকর্ড ১২ বার একটানা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটের দরজা খুলে ফেলে৷

বার্সার হয়ে জোড়া গোল করেন মেসি৷ একটি করে গোল করেছেন কুটিনহো, পিকে ও দেম্বেলে৷ লিয়ঁর হয়ে ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে একটি গোল শোধ করেন টুসার্ট৷

মাঠে নামার আগে পরিসংখ্যানের দিক দিয়ে অবশ্য এগিয়ে ছিল বার্সেলোনাই৷ এর আগে লিয়ঁর বিরুদ্ধে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের তিনটি হোম ম্যাচেই জয় তুলে নিয়েছিল বার্সা৷ গোল করেছিল ১০টি৷ তাদের গোল হজম করতে হয় মাত্র ২টি৷ এই ম্যাচের পর জয়ের সংখ্যাটা গিয়ে চারে দাঁড়াল৷ গোল সংখ্যা এক লফে গিয়ে গাঁড়ায় পনেরোয়৷অবশ্য গোল হজম করতে হয় সাকুল্যে তিনটি৷

ম্যাচের ১৬ মিনিটের মাথায় দেনায়ের নিজেদের বক্সে স্লাইড করে সুয়ারেজকে ফাউল করেন এবং রেফারি পেনাল্টির নির্দেশ দেন৷ ১৭ মিনিটে স্পট কিক থেকে গোল করে মেসি ১-০ এগিয়ে দেন বার্সেলোনাকে৷ ৩১ মিনিটে সুয়ারেজে পাস থেকে গোল করে বার্সার ব্যবধান ২-০ করেন কুটিনহো৷ প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয়ে কাতালান ক্লাবের অনুকূলে ২-০ গোলে৷

হাফটাইমের পরে গোল ব্যবধান কমান টুসার্ট৷ ম্যাচের স্কোরলাইন দাঁড়ায় ২-১৷ ৭৮ মিনিটে সার্জিও বাসকোয়েটসের পাস থেকে গোল করে ব্যবধান পুনরায় বাড়িয়ে ৩-১ করেন মেসি৷ ৮১ মিনিটে পিকেকে গোলের পাস বাড়াল এলএস টেন এবং পিকো গোল করে স্কোরলাইন ৪-১ করেন৷ এক মরশুমে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত গোলের নিরিখে পিকে ছুঁয়ে ফেলেন নিজের অতীতের রেকর্ড৷ ২০১৪-১৫ মুশুমে মোট ৭টি গোল করেছিলেন তিনি৷ এবার লা লিগায় ৪টি, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দু’টি ও সুপার কাপে একটি গোল আসা পিকের পা থেকে৷

View image on Twitter
ম্যাচের ৮৬ মিনিটে মেসি গোলের বল বাড়িয়ে দেন দেম্বেলেকে৷ লিয়ঁর জালে বল জড়িয়ে দেম্বেলে বার্সার হয়ে পাঁচ গোলের বৃত্ত পূর্ণ করেন৷ ম্যাচের চূড়ান্ত স্কোরলাইন দাঁড়ায় ৫-১৷ দু’টি গোল করে এবং দু’টি অ্যাসিস্ট করে ম্যাচের সেরা হন মেসি৷

Share this post

PinIt
scroll to top
alsancak escort bornova escort gaziemir escort izmir escort buca escort karsiyaka escort cesme escort ucyol escort gaziemir escort mavisehir escort buca escort izmir escort alsancak escort manisa escort buca escort buca escort bornova escort gaziemir escort alsancak escort karsiyaka escort bornova escort gaziemir escort buca escort porno