izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

পেকুয়ায় যুবককে কুপিয়ে জখম

pic-ahata-jubak-14-03-19.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(১৪ মার্চ) :: পেকুয়ায় মোহাম্মদ এমরান (২২) নামের এক যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে দুবৃর্ত্তরা। এ সময় অজ্ঞান অবস্থায় সড়কের পাশ থেকে তাকে প্রত্যক্ষদর্শীরা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

১৪ মার্চ বিকেল ৪ টার দিকে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের ভেলুয়ারপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত এমরান ওই এলাকার নুর মোহাম্মদের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্র জানায়, ওই দিন বিকেলে মোহাম্মদ এমরান কাদিমাকাটা বোনের বাড়ি থেকে নিজ বাড়ি ভেলুয়ারপাড়ার দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা ১০/১২ জনের দুবৃর্ত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি হামলা চালায়।

এ সময় ওই এলাকার ছোটন,ওয়াহিদ, নেছার আহমদ, শাহাব উদ্দিন ও আশরাফ মিয়াসহ উত্তেজিত লোকজন ধারালো কিরিচ, চাইনিজ কুড়াল, লোহার রডসহ তারা পিছুন দিক থেকে যুবক এমরানকে আক্রমন করে। এ সময় প্রাণনাশ উদ্দেশ্যে হামলাকারীরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মো: এমরান ধনিয়াকাটা বটতলা বাজারে কীটনাশক ও সারের ব্যবসা করেন। ওই দিন বিকেলে এমরান বারবাকিয়া ইউনিয়নের কাদিমাকাটা থেকে তার বোনের বাড়ি থেকে ভেলুয়ারপাড়া নিজ বাড়ির দিকে ফিরছিলেন। এ সময় ওই দুবৃর্ত্তরা তাকে আক্রমন চালায়। জখমী এমরান রাস্তায় পতিত হন।

এ সময় অজ্ঞান অবস্থায় প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে ধরাধরি করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

প্রত্যক্ষদর্শী তৌহিদ, বাহার উদ্দিন, আনোয়ার, শফিউল আলম, রুমা আক্তার ও নুরজাহানসহ ভেলুয়ারপাড়ার স্থানীয়রা জানায়, এমরানকে পিছুন দিক থেকে আক্রমন চালানো হয়। তারা পূর্ব থেকে প্রস্তুত ছিল। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার মাথার পিছুনে মারাত্মক জখম করে। প্রচুর রক্তক্ষরন হয়েছে। সে অচেতন হয়ে যায়। রক্ত বমি হয়েছে।

পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানায়, আঘাত বড়। আমরা চেষ্টা করছি। অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার দেয়া হবে।

স্থানীয়রা জানায়, হামলাকারীরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও খারাপ প্রকৃতির লোক। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে বলে জানা যায়।

Share this post

PinIt
scroll to top