জন্মদিনে উৎসব শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ

Meyor-Mujib-pic-3.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি(১৭ মার্চ) :: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসে শ্রদ্ধা-ভালবাসা আর উৎসবমুখর পরিবেশে জাতির পিতাকে স্মরণ করেছে কক্সবাজারবাসী।

রোববার সকাল থেকে দিনব্যাপী জেলায় আওয়ামী লীগ এবং সহযোগি সংগঠন ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে দিবসটি বর্ণাঢ্য আয়োজনে উদ্যাপন করা হয়।

এদিকে সকাল থেকে আলাদাভাবে অন্তত: ১০টি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হয়ে উদ্যাপনে সামিল হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান। সকালে জেলা প্রশাসনের র‌্যালী পূর্ববর্তী কর্মসূচীর সাথে পৌরসভার পক্ষ থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান মেয়র মুজিবুর রহমান। এসময় জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফাসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরে কক্সবাজার পৌরসভা সম্মেলন কক্ষে বিশাল কেক কেটে বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন করেন মেয়র। পরে পৌর প্রিপ্যার‌্যাটরী উচ্চ বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মেয়র মুজিব। সেখান থেকে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত দু’দিনের অনুষ্ঠান মালায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

এরপর কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন পাওয়ার হাউস এলাকায় কক্সবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রশিক্ষণ একাডেমি আয়োজিত বর্ণাঢ্য ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হন মেয়র মুজিবুর রহমান। অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধান অতিথিকে ফুল দিয়ে বরণ করেন একাডেমির পরিচালক প্রকৌশলী এস.এম এ আজিম।

পরে মেয়রকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা “গার্ড অব অনার” প্রদান করেন দায়িত্বরত আনসার বাহিনীর সদস্যরা। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্যদিয়ে প্রধান অতিথি পতাকা উত্তোলন শেষে দোয়া মাহফিল এবং কেক কাটা অনুষ্ঠান আয়োজন করে প্রশিক্ষণ একাডেমি।

প্রশিক্ষণ একাডেমির পরিচালক প্রকৌশলী এস.এম এ আজিম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, “১৯২০ সালে টুঙ্গিপাড়া গ্রামে শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম হয়েছিলো বলেই একটি লাল সবুজের বাংলাদেশের জন্ম হয়েছিলো। তাই যারা জাতির জনককে অস্বীকার করে তাদের জারজ সন্তান বলা ছাড়া অন্য কোন ভাষা থাকেনা।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের এই প্রশিক্ষণ একাডেমিতে এসে আমি মুগ্ধ হয়েছি। আজ এখানে এসেই যখন দেখলাম জাতির পিতার জন্মদিন উদ্যাপন করা হচ্ছে ব্যতিক্রমী এবং বর্ণাঢ্যভাবে তখন আমি অবাক হয়েছি।

তিনি বলেন, “এক সময় ঘনঘন লোড শেডিংয়ের অপবাধে মানুষ বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের গালিগালাজ করতো, আর এখন বিদ্যুৎ যায়না বলে শেখ হাসিনার প্রশংসা করে মানুষ, এখানেই ব্যতিক্রম। তাই বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আজীবন রাষ্ট্র ক্ষমতায় দেখতে চান দেশের মানুষ।” পরে সুন্দর মনোমুগ্ধকর আয়োজনের জন্য সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান মেয়র।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকৌ.আব্দুল কাদের গণি, শিকল বাহা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন ও কক্সবাজার বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সভাপতি উৎপল বড়–য়া। পরে কেক কেটে জাতির জনকের জন্মদিন উদ্যাপন করেন প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষনার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

এছাড়া দুপুরে লিংকরোডস্থ মো.ইলিয়াছ মিয়া চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতির পিতার জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মেয়র মুজিবুর রহমান। সেখানে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের জন্য মেজবানের আয়োজন করা হয়।

এরপর সন্ধ্যায় হোটেল দ্যা কক্স টুডে’র বলরুমে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ আয়োজিত দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান।

জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইশতিয়াক আহমদ জয়ের সভাপতিত্বে ও ছাত্রলীগ নেতা মঈন উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি নজিবুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক উজ্জল কর ও সদর উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী কায়সারুল হক জুয়েল। এর আগে হোটেল লবিতে কক্সবাজার আইন কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের কেক কাটেন মেয়র মুজিব।

সব মিলিয়ে অন্তত: ১০টি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হয়ে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসে ব্যস্ততম সময় পার করেছেন মেয়র মুজিবুর রহমান।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri