izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

ইউরোপ থেকে ফিরেছে ১৮৫ অবৈধ বাংলাদেশি

bd-ppl-eu-flag-coxbangla.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২ এপ্রিল) :: ইউরোপ থেকে অনিয়মিত বাংলাদেশিদের ফেরত আনার বিষয়ে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে বৈঠকে বসতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আগামী ৫ এপ্রিল ব্রাসেলসে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে আমরা এ সংক্রান্ত একটি স্ট্যান্ডার্ড অফ প্রসিডিওর (এসওপি) স্বাক্ষর করেছি। গত ১৮ মাসে ইউরোপ থেকে ১৮৫ জন অবৈধ বাংলাদেশি এর অধীনে ফেরত এসেছে। আমাদের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছে, সেটি অত্যন্ত ভালো কাজ করছে। কারণ, এই চুক্তির আগে বলা হতো যে, হাজার হাজার বাংলাদেশি ইউরোপে অবৈধভাবে বাস করছে, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এই অবৈধদের লিস্ট এখনও পর্যন্ত আমাদের দেওয়া হয়নি।’

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা তাদের বলেছি, অবৈধদের আমরা ফেরত নিয়ে আসবো এবং তারা আমাদের যে লিস্ট দিয়েছে, তার মধ্যে ২০০ জনেরও কম ফেরত এসেছে। এর ফলে আমাদের ওপর যে চাপ ছিল, সেটি অনেকাংশে লাঘব হয়েছে। কারণ, কতজন বাংলাদেশি ইউরোপে অনিয়মিতভাবে আছে, এর প্রকৃত সংখ্যা ইউরোপের রাষ্ট্রগুলো এখনও আমাদের দেয়নি।’

আসন্ন বৈঠকে কী নিয়ে আলোচনা হতে পারে জানতে চাইলে ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘এই এসওপির অধীনে আমরা একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি এবং সেটি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে।’

জানা গেছে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সরকারকে ৫.৫ মিলিয়ন ডলার প্রকল্প সহায়তা দিয়েছে, যার অধীনে নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেজের সঙ্গে একটি ইন্টারফেস তৈরি করা হবে, স্পেশাল ব্রাঞ্চে একটি বিশেষায়িত ইউনিট স্থাপন করা হবে এবং যারা ফেরত আসছে ও আসবে তাদের ডাটাবেজ তৈরি করে পুনর্বাসনে সহায়তা দেওয়া হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের ডাটাবেজের সঙ্গে একটি ইন্টারফেস তৈরির উদ্দেশ্য হচ্ছে যারা অবৈধভাবে ধরা পড়বে, তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া। এছাড়া স্পেশাল ব্রাঞ্চে একটি বিশেষায়িত ইউনিটে অবৈধদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট পরীক্ষা করা হবে এবং যারা ফেরত এসেছে তাদের পুনর্বাসনের জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে করা এসওপি অনুযায়ী, একজন বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানোর আগে তার বিরুদ্ধে সব ধরনের প্রশাসনিক ও আইনগত বিধিবিধান শেষ করতে হবে। এছাড়া তাকে ফেরত পাঠানোর আগে তার বাংলাদেশি নাগরিকত্ব ইউরোপেই নিশ্চিত করতে হবে বলে দু’পক্ষই একমত হয়েছে।

এই চুক্তির অধীনে প্রথম ছয়মাস-প্রতিমাসে ১০০ জনের বেশি তারা ফেরত পাঠাতে পারবে না এবং পরবর্তীতে এই সংখ্যা বাড়ানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৬ এর ডিসেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বাদে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্য ২৭টি দেশে প্রায় দুই লাখ বৈধ ভিসাধারী বাংলাদেশি অবস্থান করছে, যাদের সেখানে থাকার এবং কাজ করার অনুমতি আছে।

একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০১৬ সালে প্রায় আট হাজার ২০০ জন এবং ২০১৭ সালের ১৯ জুলাই পর্যন্ত প্রায় আট ৫০০ বাংলাদেশি ইটালিতে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে।

আরেকটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০১৬ সাল পর্যন্ত প্রায় ১৭ হাজার ৩০০ বাংলাদেশি ইউরোপে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেছে এবং এরমধ্যে প্রায় ১১ হাজার ৮০০ জনের আবেদন খারিজ করা হয়েছে।

Share this post

PinIt
scroll to top