পেকুয়ায় ছুরিকাঘাত করে টাকা লুট

hamla-marpit-loot.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(৪ এপ্রিল) :: পেকুয়ায় এক দর্জিকে ছুরিকাঘাত করে নগদ ৫২ হাজার টাকা লুট করার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় মূমূর্ষু অবস্থায় গ্রামীন সড়ক থেকে তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার অবস্থা গুরুতর বলে পারিবারিক সুত্র নিশ্চিত করে। প্রাণসংহার উদ্দেশ্যে ওই দর্জিকে ছুরিকাঘাত করে।

৪ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যা ৭ টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের গোঁয়াখালী উত্তরপাড়া কালুশাহ মাজার সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনা ঘটে। জখমী ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ রাসেল (১৭)। তিনি ওই এলাকার জসিম উদ্দিনের ছেলে। পেশায় একজন দর্জি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্র জানায়, ওই দিন সন্ধ্যার দিকে মোহাম্মদ রাসেল পেকুয়া বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। উত্তরপাড়া কালুশাহের মাজার সংলগ্ন স্থানে পৌছলে তিনি আক্রান্ত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী ফুলমাছ খাতুন, রেশমা খাতুন, মুন্নি আক্তার, এরশাদ আলী, জামাল হোসেন ও শামশুল আলম জানায়, মোহাম্মদ রাসেল পেকুয়া বাজারে একটি টেইলার্সে কাপড় সেলাইয়ের কাজ করে। দর্জি কাজ শেষে সন্ধ্যার দিকে বাড়ি ফিরছিলেন।

এ সময় মৃত সালামত খানের ছেলে হারুনুর রশিদ, মোহাম্মদ কালুর ছেলে তৌহিদ, মোসলেম মিয়ার ছেলে কালু, মেয়ের জামাই আবু তাহেরসহ ৫/৬ জন মিলে তাকে পথরোধ করে। উত্তেজিত লোকজন তাকে কিল, ঘুষিসহ ধারালো ছুরা দিয়ে কপালে মারাত্মক আঘাত করে। এ সময় সে রক্তাক্তবস্থায় কালুশাহ মাজার সংলগ্ন স্থানে লুটিয়ে পড়ে। এ সময় নগদ টাকা ও মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ১২০ শতক জমি নিয়ে রাসেলের পিতা জসিম উদ্দিন গং ও হামলাকারী কালু গংদের বিরোধ চলছিল। এর সুত্র ধরে ওই দিন সন্ধ্যায় তাকে ছুরিকাঘাত করে। এর আগেও দু’পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয় কয়েক দফা। হামলাকারী হারুন ভাড়াটে লোক। ভাড়াটে ওই ব্যক্তি রাসেলকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরিকাঘাত করে।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri