প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসা সহায়তার পর এবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পেল দেশের দীর্ঘ মানব জিন্নাত আলী

Ramu-Jennat-Ali-Pic-2-09.04.jpg

নীতিশ বড়–য়া,রামু(৯ এপ্রিল) :: দেশের দীর্ঘ মানব রামুর জিন্নাত আলীর জীবিকা নির্বাহের জন্য এবার সরকারের পক্ষ থেকে খুলে দেয়া হলো একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান (মুদির দোকান)। প্রায় পাঁচ মাস আগে জিন্নাত আলী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে স্বাক্ষাত করেন। এসময় জিন্নাত আলীকে দেখে অভিভূত হন প্রধানমন্ত্রী।

জিন্নাত আলী প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার অসুস্থার বিষয়টি জানালে সঙ্গে সঙ্গে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। এসময় জিন্নাতের থাকার জন্য জমি ও ঘর তৈরী করে দেওয়ার নির্দেশনাও দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পাঁচমাস পর এবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জিন্নাত আলীর জীবিকা নির্বাহের জন্য রামু উপজেলার গর্জনীয়া বাজারে ১৬৮ বর্গফুট জায়গার উপর ৫০হাজার টাকার পণ্য সামগ্রীসহ একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান (মুদি দোকান) খুলে দেওয়া হয়।

মঙ্গলাবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে এ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। এসময় জেলা প্রশাসক ৫০০টাকা দিয়ে জিন্নাত আলীর দোকান থেকে একটি টিস্যুর প্যাকেটও ক্রয় করেন। দোকান উদ্বোধনকালে দীর্ঘ মানব জিন্নাত আলীকে ও তার দোকান দেখার জন্য শত শত উৎসুক জনতার ঢল নামে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জিন্নাত আলীর হাতে দোকানের চাবি, জমির বন্দোবস্থির কাগজ পত্র এবং মালামাল বুঝিয়ে দেয় জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান, সহকারি কমিশনার (ভূমি) চাই থোয়াইহ্লা চৌধুরী, গর্জনিয়া ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদ, গর্জনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, কচ্ছপিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবু মো.ইসমাইল নোমান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, জিন্নাত আলী একজন দেশের সবচেয়ে দীর্ঘমানব। তাকে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ মানবও বলা হয়। সে বিষয়টি আমরা খোঁজ নিচ্ছি। তার অসুস্থতার বিষয়টি জানতে পেরেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষনিক জিন্নাতের চিকিৎসার ব্যবস্থা করার নির্দেশ দেন। ইতিমধ্যে তার চিকিৎসা সেবা চলছে।

তাঁর অসুস্থতার বিষয়টি বিবেচনা করে এবং সে যাতে ভালভাবে জীবিকা নির্বাহ করতে পারে এজন্য এ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি খুলে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মতে জিন্নাত আলীকে জমি এবং সে যাতে ভালভাবে চলাফেরা করতে পারে সেভাবেই উঁচু করে ঘর তৈরী করে দেওয়ার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

জানা গেছে, গত বছরের ২৪ অক্টোবর জিন্নাত আলী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে স্বাক্ষাত করেন। এসময় জিন্নাত আলীকে দেখে অভিভূত হন প্রধানমন্ত্রী। সাক্ষাতকালে জিন্নাত আলী প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার অসুস্থার বিষয়টি জানালে সঙ্গে সঙ্গে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। এ বিষয়টি দেশের বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যমে শিরোনাম হয়। সেই থেকে ভাগ্য খুলে যায় দীর্ঘ মানব জিন্নাত আলীর।

গর্জনিয়া ইউনিয়ন হাফেজ আহমদ জানান, কক্সবাজারের গর্জনিয়া ইউনিয়নের বড়বিল গ্রামের বাসিন্দা দরিদ্র আমীর হামজার ছেলে জিন্নাত আলী। এক মেয়ে, তিন ছেলের মধ্যে জিন্নাত তৃতীয়। ১২ বছরের আগ পর্যন্ত স্বাভাবিক ছিল জিন্নাতের বেড়ে ওঠা। কিন্তু ১২ বছর বয়স থেকে অস্বাভাবিক ভাবে লম্বা হতে থাকে জিন্নাত। খুব দ্রুত উচ্চতা বেড়ে মাত্র ২২বছর বয়সে এখন ৮ ফুট ২ ইঞ্চির এক দীর্ঘ মানব জিন্নাত আলী।

 

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri