izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আজ ম্যানইউ-বার্সা এবং আয়াক্স-জুভেন্টাস হাইভোল্টেজ ম্যাচ

juv-ajax-mnu-barsa-coxbangla.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১০ এপ্রিল) :: ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো কী শতভাগ ফিট হয়ে মাঠে নামতে পারবেন? চোট কাটিয়ে ফিরলেও শুরুর একাদশে তাকে দেখা যাবে? অন্য সময় হলে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই ব্যস্ত থাকতেন সবাই। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে আজ রোনাল্ডোর জুভেন্টাসকে আতিথ্য দেবে আয়াক্স। ইউরোপের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী দুই ক্লাবের লড়াই উপভোগ্যই হওয়ার কথা। তাতে বাড়তি মাত্রা যোগ হচ্ছে রোনাল্ডোর ফেরার সম্ভাবনায়। ইতালিয়ান মিডিয়ার খবর, শুরু থেকেই আজ খেলবেন পর্তুগিজ যুবরাজ।

কিন্তু জুভেন্টাস সমর্থকদের বাইরে এ নিয়ে বিশেষ আগ্রহ নেই ফুটবল রোমান্টিকদের। অমৃতের ঘ্রাণ নাকে এলে সুস্বাদু খাবারও যে মুখে রোচেনা! চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মেন্যুতে আজ সেই অমৃতের নাম ম্যানইউ-বার্সেলোনা মহারণ। ইতহাস, ঐতিহ্য আর তারকাদ্যুতি মিলিয়ে তর্কাতীতভঅবে শেষ আটের সবচেয়ে আবেদনময় ম্যাচ এটি। ওল্ড ট্রাফোর্ডে প্রথম লেগে আজ ম্যানইউর আতিথ্য নিচ্ছে বার্সেলোনা।

আট বছর পর দেখা হচ্ছে ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম দর্শকপ্রিয় দুই ক্লাবের। শেষ দু’বারই তাদের দেখা হয়েছিল ফাইনালে। ২০০৯ ও ২০১১ সালের দুটি ফাইনালেই ম্যানইউর হৃদয় ভেঙে শিরোপা উৎসব করেছিল মেসির বার্সেলোনা। বার্সা মানে এখনও সেই মেসিই। কিন্তু ম্যানইউ বদলে গেছ গোলনলচে। স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের জায়গায় ডাগআউটে তার শিষ্য ওলে গুনার সুলশার। রোনাল্ডো, রুনিদের জায়গায় স্বপ্নসারথি এখন পগবা, রাশফোর্ডরা। ফার্গির ম্যানইউকে হারিয়ে দু’বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতলেও বার্সা তখন নিরংকুশ ফেভারিট ছিল না। এবার ম্যানইউর ডেরায়ও পরিষ্কার ফেভারিট কাতালানরা। কারণ দু’দলের সাম্প্রতিক ফর্ম একদম বিপরীতমুখী। সাত ম্যাচ বাকি থাকতে লা লিগার শিরোপা দৌড়ে ১১ পয়েন্টের ব্যবধানে এগিয়ে বার্সা।

সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ১৬ ম্যাচে অপরাজিত তারা। অন্যদিকে শেষ চার ম্যাচের তিনটিতে হারা ম্যানইউ ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ছয় নম্বরে পড়ে আছে। ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে স্প্যানিশ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে শেষ ১৫ ম্যাচের মাত্র দুটিতে জিতেছে ম্যানইউ। যেখানে ইংলিশ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে শেষ ১৩ ম্যাচের মাত্র একটিতে হেরেছে বার্সা। এবার মেসি ও সুয়ারেজ যে ফর্মে আছেন তাতে নিজেদের আন্ডারডগ মানতে আপত্তি করার কথা নয় রেডডেভিলদের। ২০০৮ সালের সেমিফাইনালে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যানইউর কাছে ১-০ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছিল বার্সা। অনেকের মতে, সেই হারই মেসির ক্যারিয়ারের গতিপথ বদলে দেয়।

নিরপেক্ষ ভেন্যু ও ঘরের মাঠে সবমিলিয়ে ম্যানইউকে চারবার হারালেও ওল্ড ট্রাফোর্ডে কখনও জয়ের মুখ দেখেনি বার্সা। চার ম্যাচে দুটি হার ও দুটি ড্র। আজ সেই অপূর্ণতা ঘোচানোর সুযোগ মেসিদের। ম্যানইউরও আশা আছে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে টানা ছয়টি অ্যাওয়ে ম্যাচে জয়হীন বার্সা। অন্যদিকে আগের রাউন্ডেই পিএসজির মাঠে প্রত্যাবর্তনের রূপকথা লিখেছে ম্যানইউ। খেলোয়াড় হিসেবে ম্যানইউর ইতিহাসের সেরা রূপকথা সুলশারই লিখেছিলেন। বার্সার ডেরা ন্যুক্যাম্পে ১৯৯৯ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে ইনজুরি টাইমে দুই গোল করে বাজিমাত করেছিল ম্যানইউ। জয়সূচক গোলটি করেছিলেন সুলশার।

সেই লড়াকু চেতনায় শিষ্যদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা করছেন তিনি।

আয়াক্স-জুভেন্টাস ম্যাচও স্মৃতিকাতর করে তুলবে অনেককে। ১৯৯৬ সালে টাইব্রেকারে আয়াক্সকে হারিয়েই নিজেদের শেষ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছিল জুভেন্টাস। ১৯৭৩ সালে আবার জুভেন্টাসকে হারিয়ে ইউরোপিয়ান কাপ জিতেছিল আয়াক্স। তবে দু’দলের শেষ নয় ম্যাচে অপরাজিত জুভেন্টাস। রোনাল্ডো খেললে আজও ফেভারিট হিসেবেই আয়াক্সের মাঠে নামবে তুরিনের বুড়িরা। রোনাল্ডোর অনবদ্য হ্যাটট্রিকেই খাদের কিনার

থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে শেষ আটে আসতে পেরেছে জুভেন্টাস। অন্যদিকে গত তিনবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদকে বিদায় করে শেষ আটে পা রেখেছে তারুণ্যনির্ভর আয়াক্স। সাবেক দলের পরিণতি দেখেই হয়তো যে কোনো মূল্যে আজ মাঠে নামতে মরিয়া রোনাল্ডো।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আজ ম্যানইউ ও বার্সেলোনা আয়াক্স ও জুভেন্টাস

(স্বাগতিক দল আগে। দুটি ম্যাচই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায়)

Share this post

PinIt
scroll to top