পেকুয়ায় ডিভোর্স নিয়ে মামলা

mamla-coxbangla.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(১৬ জুন) :: পেকুয়ায় ডিভোর্স স্ত্রীর ভাই করল বোনের সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা। স্বামী-স্ত্রীর সংসারে বনিবনা চলছিল। এ সময় ওই দম্পতি দাম্পত্য জীবনের অবসান ঘটাতে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তে পৌছে। স্ত্রী স্বামীকে তালাক দেয়। এরপর থেকে পারষ্পরিক যোগাযোগ এ ২ জনের মধ্যে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

এ দিকে সাবেক স্ত্রী বিবাহ অনুষ্টান থেকে গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় উৎপেতে থাকা সাবেক স্বামীসহ ৫/৬ জন অস্ত্রধারী দুবৃর্ত্তরা ওই নারীকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। স্থানীয়রা সাবেক স্ত্রীকে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

সৃষ্ট বিরোধের জের ধরে আরও কয়েক দফা রক্তক্ষয়ী ঘটনা সংঘটিত হয়। দ্বিতীয় দফা ফের ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। স্ত্রীর ভাই আমিন ইমতিয়াজকে ছুরিকাঘাতসহ প্রাণনাশ চেষ্টা চালায়। মূমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরবর্তীতে চমেক হাসপাতালে রেফার করে।

ওই ঘটনায় সাবেক স্ত্রীর ভাই আমিনুল আরফাত আদিল বাদী হয়ে চকরিয়া সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে নালিশি অভিযোগ প্রেরন করে। যার সিআর নং ১৯০/১৯। মামলায় আমিন ইমতিয়াজের বোন মিকাতুল জন্নাত এর সাবেক স্বামী পেকুয়া সদর ইউনিয়নের জমিদারবাড়ীর আশেক এলাহীর ছেলে এটিএম জায়েদ মোর্শেদ, বড় ভাই ফোরকান ইলাহীসহ ৬ জনকে আসামী করে।

আর্জি সুত্র জানায়, ১ নং আসামী এটিএম জায়েদ মোর্শেদ ও আমিন ইমতিয়াজের বোন মিকাতুল জন্নাত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। স্বামী স্ত্রীর সংসারে অশান্তি সৃষ্টি হয়। তারা বিচ্ছেদের মাধ্যমে দাম্পত্য জীবনের অবসান ঘটান। কিন্তু আসামী সাবেক ওই স্ত্রীকে হত্যা চেষ্টা চালায়। তাকে পিটিয়ে জখমও করে।

আমিন ইমতিয়াজ গ্রামে পৌছলে তাকেও প্রাণনাশ চেষ্টাসহ কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। আসামীরা মারাত্মক বেপরোয়া। বাদীপক্ষ জান ও মালের নিরাপত্তার জন্য ভয়ংকর ওই ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নিতে জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলাটি রুজু করে।

মিকাতুল জন্নাত জানায়, জায়েদ মুর্শেদ ও আমার সম্পর্কের পরিসমাপ্তি ঘটেছে। এরপরও ওই ব্যক্তি আমাকে প্রাণনাশ চেষ্টা চালায়। সে হিংস্র। আমার ভাই আমিন ইমতিয়াজকেও জখম করে প্রাণনাশ চেষ্টা চালায়।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri