মহেশখালীতে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে লাগামহীন দূর্ণীতি

dorniti.jpg

এম রমজান আলী,মহেশখালী(১৮ জুন) :: সরকারীভাবে নিয়োগ (এন.টি.আর.সিএ) ২০১৯ সালে মহেশখালী উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৬০/৭০ জন শিক্ষক/শিক্ষিকা নিয়োগ প্রাপ্ত হন।

সেই শিক্ষকদের ডিও পোষ্ট করতে হয়, সেই পোষ্টটি সরকার প্রদত্ত মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের গোপনীয় কোডের মাধ্যামে পাঠাতে হয়।

সেই গোপনীয় কোডটি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছ থেকে নেওয়ার জন্য ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের আইডি থেকে শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানোর জন্য নিয়োগ প্রাপ্ত প্রতিটি শিক্ষকের কাছ থেকে ২০ হাজার, ৩০ হাজার সর্ব নিন্ম ১০ হাজার টাকা জোরপূর্বক ফাইল আটকিয়ে মহেশখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কৌশলে অন্য লোক দিয়ে আদায় করেছেন এমন অসংখ্য অভিযোগ করেছেন ভোক্তভোগী শিক্ষকগণ।

তথ্য নিয়ে জানাগেছে, মহেশখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কৌশল হিসেবে নিজের দায় এড়াতে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের কাছ থেকে ফাইল আটকিয়ে টাকা আদায় করেছেন জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের দায়িত্বরত গাড়ীর চালক ড্রাইভারের মাধ্যমে।

বিষয়টি প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক নেতৃবৃন্দ অবগত হয়েছে। সংগত কারনে যেই সব শিক্ষাপ্রতিষ্টানের নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকগণ টাকা প্রদান করেছেন তাদের নাম গোপন করা হয়েছে ।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri