কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-১১

police-cox-avijan-coxbangla-1.jpg

কক্সবাংলা রিপোর্ট(১৪ জুলাই) :: কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানে পৃথক অভিযান চালিয়ে ১১ জন আসামীকে আটক করেছে পুলিশ। গত ১৩ জুলাই সকাল ৮টা হতে ১৪ জুলাই সকাল ৮টা পর্যন্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাদের আটক করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলো-

কক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-৩৩, ধারা-৩৩২/৩৫৩/ ৩৪ পেনাল কোড । সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী

১।মোঃ আলী নুর, পিতা-মৃত মোফাজ্জল হাওলাদার, মাতা-মৃত আছিয়া, স্থায়ী-আদমজী, কদমতলী, থানা/উপজেলা-সিদ্ধীরগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ, বর্তমানে তেলঘাটা, বড় মসজিদের পিছে, শান্তপাড়া, থানা/উপজেলা-কেরানীগঞ্জ, ঢাকা।

২। মোঃ নাসির শেখ , পিতা-মৃত আব্দুর আজিজ শেখ, স্থায়ী-মুহরীপুন্টি (মোয়াজ্জেম মিয়ার বাড়ীর ভাড়াটিয়া) থানা/উপজেলা-কেরানীগঞ্জ, ঢাকা,

৩।মোঃ আনোয়ার হোসেন , পিতা-মৃত হাওলাদার, মাতা-সূর্য বানু, স্থায়ী-ভুলুগাও (হাওলাদার বাড়ী), খিদিরপাড়া ইউপি, থানা/উপজেলা-লৌহজন, মুন্সিগঞ্জ,

৪।মোঃ সেলিম মৃধা, পিতা-খলিল মৃধা, মাতা-সাজিদা বেগম, স্থায়ী-সন্ধিশাহ্, (শেখ পাড়া), বেজগাঁও ইউপি, থানা-লৌহজন, মুন্সিগঞ্জ।

৫।মোঃ ইমাম হোসেন, পিতা-মৃত শহীদুল ইসলাম, মাতা-মৃত মুন্নী বেগম, স্থায়ী-চেতুলিয়া কাশীপুর, ০৫নং ওয়ার্ড, চেতুলিয়া ইউপি, থানা/উপজেলা-পালং, শরীয়তপুর।

৬। মোঃ জামাল পিতা-মৃত কালাই খাঁন, মাতা-মৃত পক্ষী বেগম, স্থায়ী-মওসতগাঁও, (খাঁ বাড়ী), ভোগদিয়া ইউপি, থানা/উপজেলা-লৌহজন, মুন্সিগঞ্জ,

৭। মোঃ মহিউদ্দিন, পিতা-মৃত মাইন উদ্দিন, মাতা-মৃত ফাতেমা বেগম, স্থায়ী-বৈচাপার্ক, বাগরা ইউপি, থানা/উপজেল-শ্রীনগর, মুন্সিগঞ্জ,

কক্সবাজার সদর থানার মামলা নং-২০,ধারা-৩৯৯/৪০২ পেনাল কোড সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত আসামী।

১।মোঃ মানিক হোসেন,পিতা-মৃত নুরুল কাদের,সাং-মাতার বাড়ী,পুরাতন বাজার, ০৬ নং ওয়ার্ড,থানা-মহেশখালী,জেলা-কক্সবাজার।

২।মোঃ ওমর ফারুক,পিতা-নুর মোহাম্মদ,সাং-সমিতি পাড়া, ০১ নং ওয়ার্ড,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।

ওয়ারেন্ট সংক্রান্ত গ্রেফতার

১।রিমন,পিতা-রহিম মাস্টার,সাং-উত্তর নুনিয়ারছড়া,টেকপাড়া,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।

২।মনিরুজ্জামান,পিতা-মৃত রশিদ,সাং-দক্ষিন পাহাড়তলী,থানা ও জেলা-কক্সবাজার।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার (পিপিএম) তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারের পর আদালতের মাধ্যমে তাহাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এলাকার আম জনতা ও পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তার নিশ্চিতের লক্ষ্যে মামলায় অভিযুক্ত ও চিহিৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri