পেকুয়ায় ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টা

rape-eng.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(১৮ অক্টোবর) :: কক্সবাজারের পেকুয়ায় ৮ম শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাতে ওই ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টা করা হয়। দুপুরে বখাটেরা ছাত্রীকে পিটিয়ে আহত করে।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

শুক্রবার (১৮অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম উজানটিয়া গ্রামে হামলার এ ঘটনা ঘটে।

আহত মনি (১৪) ওই গ্রামের কামাল হোসেনের মেয়ে।

মনির পিতা কামাল জানায়, বড় বোন রেহেনা আক্তার অসুস্থ।

আমি ও আমার স্ত্রী ইসমত আরা অসুস্থ বোনকে দেখতে বৃহষ্পতিবার (১৭অক্টোবর) সকালে চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়ায় যাই। মেয়ে হাফসা ও নাতনী শিফা আক্তার বাড়িতে ছিল। রাতে আমাদের অনুপস্থিতে একই এলাকার পুতিয়া ও আবুতাহেরের ছেলে সোহেল বাড়িতে ঢুকে মেয়েকে ধর্ষন চেষ্টা চালায়। তারা চিৎকার করলে বখাটেরা পালিয়ে যায়। রাতে বাড়িতে হানা দেয়ার বিষয়টি মেয়ে আমাকে মোবাইল করে জানায়। আমরা সকালে বাড়িতে ফিরে আসি।

দুপুরে পুতিয়া, রবিউল আলম, মোশারফ ও সোহেল বাড়ির সামনে এসে বখাটেপনা করে। আমি প্রতিবাদ করলে আমাকে হামলার চেষ্টা চালায়। এ সময় মেয়ে এগিয়ে আসলে তারা হাফসাকে লাথি,কিল, ঘুষি মেরে আহত করে।

শিক্ষার্থী হাফসা জানায়, রাতে আমি ও ভাগ্নি শিফা আক্তার ঘুমিয়ে পড়ি।

গভীর রাতে পুতিয়া ও সোহেল বাড়িতে কৌশলে দরজা খোলে বাড়িতে ঢুকে। এ সময় তারা আমাকে ধর্ষন চেষ্টা চালায়। আমরা চিৎকার করলে পালিয়ে যায়। বাড়িতে বা,মা ছিলনা। তারা অসুস্থ ফুফিকে দেখতে গিয়েছিল।

তিনি জানায়, কয়েক মাস ধরে পুতিয়া আমাকে স্কুলে আসা যাওয়ার পথে উক্তত্ত্য করত। বাজে প্রস্তাব দিত। বিষয়টি আমার বাবা, মাকে জানিয়েছি। ওই দিন কোচিং শেষে স্কুল থেকে বাড়িতে ফিরছিলাম। বাড়ির উঠানে পুতিয়াসহ চারজন বাবাকে মারতে তেড়ে আসে। আমি বাধা দিলে তারা আমাকে শারীরিক লাঞ্চিত করে। কাপড় চোপড় ছিড়ে ফেলে।

হাফসার ভাগ্নি শিফা আক্তার জানায়, আমরা দুইজন ঘুমিয়ে পড়ছিলাম। রাতে দুইজন লোক বাড়িতে ঢুকে হাফসাকে টানা হেচড়া করে। আমরা চিৎকার করলে তারা সটকে পড়ে।

স্থানীয়রা জানায়, তারা বখাটে। প্রতিদিন ইয়াবা সেবন করে। তাদের অত্যচারে এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ, মামলা রয়েছে। প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ টু শব্দ করার সাহস পায়না।

পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল আজম জানায়, এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri