বিদেশিদেরকে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দেয়া শুরু করলো সৌদি আরব

Saudi-Arabia-2560x1248.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১৩ নভেম্বর) :: ভিসা নীতিতে যুগান্তরকারী পরিবর্তন এনেছে সৌদি আরব। ইতোমধ্যে পর্যটকদের জন্য দেশটি খুলে দেয়া হয়েছে। ৪৯ দেশের নাগরিক এবং যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বৈধ ভিসা থাকা যে কেউ এখন সৌদি ভ্রমণ করতে পারছেন কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ নেয়া ছাড়াই।

এবার আরও উদার সিদ্ধান্ত নিলো সৌদি কর্তৃপক্ষ। বিদেশিদেরকে দেশটিতে স্থায়ী বসবাসের অনুমোদন দেয়া শুরু করেছে সৌদি সরকার। ইতোমধ্যে ১৯ দেশের ৭৩ জন নাগরিককে ‘প্রিমিয়াম রেসিডেন্সি’ দেয়া হয়েছে বলে সোমবার এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২ কোটি টাকার মতো বিনিয়োগ করলে যে কোনো দেশের নাগরিককে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দেয়া হচ্ছে বলে গালফ নিউজের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশি মুদ্রায় ২২ লাখ টাকার মতো বিনিয়োগ করলে এক বছরের জন্য বসবাসের অনুমতি দেয়া হচ্ছে; যা পরের বছরে নতুন বিনিয়োগের শর্তে নবায়নযোগ্য।

যে ৭৩ জন ইতোমধ্যে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি পেয়েছেন তাদের মধ্যে ব্যবসায়ী, ইঞ্জিনিয়ার, চিকিৎসক ইত্যাদি পেশার লোকজন রয়েছেন।

বিনিয়োগকারীদের কোনো কফিলের অধীনে থাকতে হবে না। এই ধরনের ভিসা প্রাপ্তারা নিজেদের পরিবার নিয়ে থাকার সুযোগ পাবেন। এবং সৌদি নাগরিকদের জন্য বরাদ্দ কিছু সুবিধাও তারা বিমানবন্দরগুলোতে পাবেন।

২১ বছরের কম বয়সীরা এই ক্যাটাগরিতে আবেদন করতে পারবেন না। আবেদনকারীরা শুধু নিজেদের আর্থিক সক্ষমতা প্রমাণাদি দাখিল করার মাধ্যমেই আবেদন করতে পারবেন।

সৌদি আরবে স্থায়ী বসবাসের আবেদন করা যাবে যেভাবে

গালফ নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রায় ২ কোটি টাকার মতো বিনিয়োগ করলে যেকোনো দেশের নাগরিককে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি পাবেন সৌদিতে। এ ছাড়া বাংলাদেশি মুদ্রায় ২২ লাখ টাকার মতো বিনিয়োগ করলে এক বছরের জন্য বসবাসের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে, যা পরের বছরে নতুন বিনিয়োগের শর্তে নবায়নযোগ্য। তবে যারা সৌদিতে বিনিয়োগ করবেন, তাদের কোনো কফিলের অধীনে থাকতে হবে না। এই ধরনের ভিসা প্রাপ্তারা নিজেদের পরিবার নিয়ে থাকার সুযোগ পাবেন। সৌদি নাগরিকদের জন্য বরাদ্দ কিছু সুবিধাও তারা বিমানবন্দরগুলোতে পাবেন।

২১ বছরের কম বয়সীরা এই ক্যাটাগরিতে আবেদন করতে পারবেন না। আবেদনকারীরা শুধু নিজেদের আর্থিক সক্ষমতা প্রমাণাদি দাখিল করার মাধ্যমেই আবেদন করতে পারবেন।

দুইভাবে সুযোগ মিলবে

দুইভাবে এ বিশেষ নাগরিক সুবিধা অর্জন করা সম্ভব। প্রথমত, স্থায়ী প্রিমিয়াম রেসিডেন্সি, যা এককালীন আট লাখ সৌদি রিয়াল খরচ করে পাওয়া যাবে। এই সুবিধা পাবেন নির্বাচিত কিছু মানুষ। এ ছাড়া অস্থায়ী বার্ষিক ফির ব্যবস্থাও রয়েছে। সেক্ষেত্রে এক লাখ সৌদি রিয়াল দিয়ে প্রতি বছর নবায়ন করতে হবে রেসিডেন্সির মেয়াদ।

স্থায়ী বসবাসে মিলবে যেসব সুযোগ-সুবিধা
ওই রেসিডেন্সির মাধ্যমে অনেক সুযোগ-সুবিধা পাবেন বসবাসকারী। সৌদি আরবের সর্বত্র ঘুরে বেড়ানোর সুবিধা ছাড়াও তারা সহজেই ব্যবসার লাইসেন্স, গাড়ি-বাড়ির মালিক হওয়া, মক্কা ও মদীনাতে জমি কেনা ইত্যাদি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। এ ছাড়া তারা যেকোনো প্রাইভেট চাকরি করতে পারবেন। পাশাপাশি নিজেরাও ব্যবসা করতে পারবেন।

প্রথম পর্যায়ে সুযোগ পাচ্ছেন যারা

বর্তমানে এই বিশেষ নাগরিকত্বের সুবিধা দেওয়ার জন্য আবেদন বাছাইয়ের সময় মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, উকিল, ব্যবসায়ী প্রমুখ পেশার মানুষদের, যারা সৌদি আরবের সামগ্রিক উন্নয়নে অনেক অবদান রাখবে।

এর আগে ৪৯ দেশের নাগরিকসহ যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বৈধা ভিসা থাকা যে কেউ সৌদি প্রবেশ করতে পারবেন এমন অনুমোদন দেয় সৌদি। ওই অনুমোদনে সৌদি আরবে কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান ছাড়াও যেকোনো প্রয়োজনে বিদেশিরা ভ্রমণ করতে পারবেন।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri