buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort

রামুতে সন্ত্রাসীর হামলায় মৃত্যুর সাথে লড়ছে কলিম

hamla-lt.jpg

সোয়েব সাঈদ,রামু(১৪ নভেম্বর) :: কক্সবাজারের রামুর জোয়ারিয়ানালায় সন্ত্রাসীর হামলার শিকার কলিম উল্লাহ মৃত্যুর সাথে লড়ছে।

বুধবার (১৩ নভেম্বর) সকাল ১১ টায় জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি চা বাগান এলাকায় বর্বরোচিত সন্ত্রাসী হামলায় আহত হন তিনি। গুরুতর আহত কলিম উল্লাহর মাথার সামনে ও পেছনে এবং হাতে ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়েছে হামলাকারিরা। বর্তমানে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন।

জানা গেছে, জমি জবর-দখলের উদ্দেশ্যে একটি বসড় বাড়ি গুড়িয়ে দিয়ে পিকআপ যোগে নিয়ে যায় হামলাকারিরা। এসময় জবর-দখলকারি চক্রের বেপরোয়া হামলায় কলিম উল্লাহ সহ ৬ জন আহত হন। হামলাকারিরা লুটপাট শেষে বাড়ির অবশিষ্ট অংশ আগুনে পুড়িয়ে দেয়। প্রকাশ্যে দিনের আলোয় এ ঘটনায় এলাকার জনমনে চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

ক্ষুব্দ এলাকাবাসী অবিলম্বে এ হামলায় জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের জোর দাবি জানিয়েছেন। এ ঘটনায় হামলার দিন রামু থানায় লিখিত অভিযোগ দিলেও এখনো মামলা রুজু হয়নি।

রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল খায়ের বৃহষ্পতিবার রাতে সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এখনো মামলা হয়নি। থানার একজন অফিসারকে বিষয়টি তদন্ত করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তদন্ত শেষে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

থানায় দেয়া অভিযোগটির বাদি জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি চা বাগান এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য আমির হোসেনের ছেলে আবদুল হালিম। তিনি জানিয়েছেন, নোনাছড়ি মাঝিরখিল এলাকার বদিউর রহমান ও তার ছেলে মো. এমরান, শাহজালাল, মৃত ছৈয়দ আহমদের ছেলে আবু তালেবের নেতৃত্বে ৩০/৪০ জন ভাড়াটে সন্ত্রাসী তার বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট করে।

এসময় বাধা দিতে গিয়ে সন্ত্রাসীর বেপরোয়া হামলায় পরিবারটির ৬ সদস্য আহত হন।

আহতরা হলেন, আমির হোসেনের ছেলে কলিম উল্লাহ (৩৭), আবদুল হালিম (৩৯), মেয়ে জুলেখা হোসেন (২৬), মর্জিনা হোসেন (২৪), সেলিমুল হকের স্ত্রী রোমেনা আক্তার (২৬) ও আবুল হাশিমের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৩৫)। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে, কক্সবাজার সদর হাসপাতাল ও অন্যান্য ক্লিনিকে নিয়ে যান। আহতদের মধ্যে কলিম উল্লাহর অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

আহতরা জানান, হামলাকারিরা দেশীয় অস্ত্র, দা, লাটি-সোটা নিয়ে পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালায়। হামলাকারিরা নারীদের শ্লীলতাহানি করে এবং তাদের বসত বাড়ি ভাংচুর, আসবাবপত্র, মোবাইল ফোন সেট সহ বিপুল মালামাল নিয়ে যায়। খবর পেয়ে সকালে রামু থানার এসআই ইমাম ঘটনাস্থলে যান। এ ঘটনায় আহত আবদুল হালিম বাদি হয়ে বুধবার (১৩ নভেম্বর) বিকালে রামু থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে হামলায় আক্রান্ত গৃহকর্তা সাবেক ইউপি সদস্য আমির হোসেন জানান, এ ঘটনার পর থেকে হামলাকারিরা মামলা না করার জন্য আহতদের বিভিন্নভাবে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। এ কারনে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এ ব্যাপারে তিনি পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri