২০২১ সালে তৃতীয় চন্দ্রাভিযানের ঘোষণা ভারতের ইসরোর

c3.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১ জানুয়ারি) :: বছর শুরুতে চাঁদ ধরার খবর। ২০২১ সালে চন্দ্রযান-৩ লঞ্চ করার কথা ঘোষণা করল ইসরো। বুধবার সকালে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার চেয়ারম্যান কে শিবন জানান, ২০২১ সালের মধ্যেই লঞ্চ করা হবে চন্দ্রযান-৩।

এই প্রজেক্টের বিষয়ে ভারত সরকার যাবতীয় অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে বলে এদিন সাংবাদিকদের জানান তিনি।

বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে কে শিবন জানান, ২০২০ সালে ইসরো আরও ২৫টি স্পেস মিশনের উপরেও কাজ করবে। চন্দ্রযান-২’এর কাজের ওপর ভিত্তি করেই চন্দ্রযান-৩ লঞ্চ করা হবে। এই প্রকল্পের কাজ এখনও পর্যন্ত ভালো ভাবে এগোচ্ছে। চন্দ্রযান ৩-এর কারণে, ভারতের অন্য কৃত্রিম উপগ্রহ লঞ্চ মিশন প্রভাবিত হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কে শিবন আরও জানান, যে চাঁদের যে অংশে বিক্রম ল্যান্ডার নামার চেষ্টা করেছিল, সেখানেই ল্যান্ড করানো হবে চন্দ্রযান-৩কেও। এই মিশনের জন্য ২৫০কোটি টাকার বাজেট ধরা হয়েছে। চন্দ্রযান ৩-এর পাশাপাশি গগনযান মিশনেরও কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ চন্দ্রাভিযান ব্যর্থ হওয়ার পর চলতি বছর পরবর্তী চন্দ্রাভিযানের অনুমোদন করেছে ভারত।

ইসরু প্রধান আরো জানান, ২০২১ সালের শেষের দিকে মানুষসহ আরেকটি মিশন পাঠানো হবে।

ইসরুর পাঠানো চন্দ্রযান-২ গত সেপ্টেম্বরে চাঁদের কক্ষে প্রবেশ করেছিল কিন্তু একটি কঠিন (হার্ড) অবতরণের পর পৃথিবীর সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

২০১৯ সালের ২২ জুলাই চন্দ্রযান-২ চাঁদের দেশে যাত্রা করেছিল। রকেটের তিন ভাগে ছিল একটি অরবিটার, অবতরণযান বিক্রম ও প্রজ্ঞান নামে ছয় চাকার একটি রোবট চালিত গাড়ি। লক্ষ্য ছিল চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণ করা। চাঁদে বরফাকারে পানির উপস্থিতি রয়েছে তা প্রমাণ করার লক্ষ্যে এ অভিযানটি পরিচালিত হয়েছিল।

তৃতীয় অভিযানটিতে আগের মিশনগুলোর চেয়ে কম ব্যয় হবে বলে জানায় ভারতের সংবাদ সংস্থা পিটিআই।

২০২০ সালে যদি চন্দ্রাভিযানে সাফল্য পায়, তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীনের পর চতুর্থ দেশ হিসেবে নাম লেখাবে ভারত। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইসরায়েলের চন্দ্রবিজয়ের চেষ্টা ভেস্তে যায়।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri