ইরাকে সামরিক আল-তাজি ঘাঁটিতে রকেট হামলা

iraq-blast.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১৬ জানুয়ারী) :: ইরাকের রাজধানী বাগদাদের উত্তরাঞ্চলে একটি সামরিক ঘাঁটিতে আবারও রকেট হামলা হয়েছে। এই ঘাঁটিতে মার্কিন সেনারা অবস্থান করছেন। তবে ইরাকের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, রকেটটি ঘাঁটির কাছে আঘাত হেনেছে।

মধ্যপ্রাচ্ যবিষয়ক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটর জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাশিয়ার নির্মিত আটটি কাতিয়ুশা ক্ষেপণাস্ত্র আল-তাজি ঘাঁটি লক্ষ্য করে ছোড়া হয়েছে। তবে তা ঘাঁটি আশেপাশে বিস্ফোরিত হয়েছে।

তবে স্থানীয় একটি সূত্র জানিয়েছে, বেশ কয়েকটি রকেট ঘাঁটির ভেতরে আঘাত করেছে। এতে তিন সেনা নিহত হয়েছে।

এই বিষয়ে ইরাকের এক সেনা কর্মকর্তা আনাদোলু এজেন্সিকে বলেছেন, ঘাঁটিটি বাগদাদ থেকে ৮৫ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত। ঘাঁটি লক্ষ্য করে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে।

এই হামলার দায় এখন পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠী স্বীকার করেনি।

সম্প্রতি আমেরিকার সেনা মোতায়েনকৃত দুটি ইরাকি ঘাঁটিতে হামলা চালায় ইরান। বাগদাদ বিমানবন্দরে ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা চালায় তেহরান। এতে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এর আগে ১২ জানুয়ারি বাগদাদের উত্তরাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদস্যরা অবস্থান করছে এমন একটি সামরিক ঘাঁটিতে রকেট হামলা চালানো হয়। এই ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের কোনও সেনা হতাহত হয়নি। তবে চার জন ইরাকি সেনা সদস্য আহত হয়েছেন।

মার্কিন সেনারা অরক্ষিত, ইউরোপীয় সেনারাও হামলার মুখে পড়তে পারে: হাসান রুহানী

মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের ‘শ্যাডো কমান্ডার’ খ্যাত কাসেম সোলাইমানির মৃত্যুর পর থেকেই মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনাদের অবস্থান নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে উঠেছে। ইরাকি পার্লামেন্ট দেশটি থেকে মার্কিন সামরিক ঘাঁটি সরিয়ে নেয়ার প্রস্তাব পাশ করেছে। যদিও তাতে কর্ণপাত করেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এবার যুক্তরাষ্ট্রকে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্য থেকে অবিলম্বে প্রত্যাহার না করা হলে, ঝুঁকিতে পড়বে মার্কিন ও ইউরোপীয় সেনারা।

বুধবার, এ হুঁশিয়ারি দেন ইরানি প্রেসিডেন্ট। ঐতিহাসিক পরমাণু চুক্তি মানতে দেশটিকে বাধ্য করতে ইইউ’র কৌশল গ্রহণের ঘোষণার মধ্যে এলো এমন হুমকি।

যুক্তরাষ্ট্র-ইরান টানাপোড়েনের মধ্য প্রথমবার মুখ খুললেন প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। প্রচ্ছন্ন হুমকি, মধ্যপ্রাচ্যে থেকে অবিলম্বে মার্কিন ও ইউরোপীয় সেনা প্রত্যাহার না করা হলে বাড়বে হামলার ঝুঁকি। পরমাণু চুক্তি মানতে বাধ্য করতে, ইইউ’র নতুন কৌশল ঘোষণার পরই এলো হুঁশিয়ারি।

রুহানি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে আজ অরক্ষিত মার্কিন সেনারা। হয়তো, আগামীকাল ইউরোপীয় সেনারাও হামলার মুখে পড়তে পারেন। যুদ্ধ-সংঘাত বাঁধিয়ে নয় বরং নিজ স্বার্থেই সেনা প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছি দেশগুলোকে। একইসাথে, আইআরজিসি’কে বলবো- গোটা বিশ্বকে আশ্বস্ত করতে বিমান দুর্ঘটনা এবং অভিযানের স্পষ্ট ব্যাখা দিন।

এর আগে, ইউরোপীয় জোটকে বিষয়টি নিয়ে সতর্ক করেন জর্ডানের রাজা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ। বলেন- তেহরানকে চাপ দিলে; উল্টো বাড়বে আঞ্চলিক অস্থিরতা।

তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, জোরপূর্বক ইরানকে পরমাণু চুক্তি মানতে বাধ্য করে ইইউ কি আঞ্চলিক অস্থিরতা ছড়াতে চাচ্ছে? তাহলে, রাজনীতিকদের বলবো- এর ফলে গোটা মধ্যপ্রাচ্যে শুরু হবে যুদ্ধ, একইসাথে ক্ষতিগ্রস্ত হবে অর্থনীতি। গোটা বিশ্বে বাড়বে সন্ত্রাসবাদ। লিবিয়া আর সিরিয়া তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ।

এদিকে, ইউক্রেন-কানাডা যৌথভাবে বিমান ভূপাতিতের তদন্ত পরিচালনা করলেও, দেশগুলোর অভিযোগ- এখনো ব্ল্যাকবক্স ছাড়ছে না ইরান।

কানাডার পরিবহন মন্ত্রী মার্ক গারনিউ বলেন, ভূপাতিত বিমানটির ব্ল্যাকবক্স এখনো ইরানের হাতে। সেগুলোর তথ্য-উপাত্ত উদ্ধার এবং বিশ্লেষণ তদন্তকাজে আরও গতিশীলতা আনবে। বিমানের একটি ব্ল্যাকবক্সে পাইলট এবং কন্ট্রোল টাওয়ারের কথোপকথন রেকর্ডে রাখে। অন্যটিতে থাকে টেকনিক্যাল ডাটা।

বুধবার, ইউক্রেনের বিমান ভূপাতিতের নতুন ভিডিও প্রকাশ পায়। যেখানে দেখা যায়- একটি নয় বরং ইরানের ছোঁড়া দুটি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিধ্বস্ত হয়েছে বোয়িং বিমানটি। এ ঘটনায় প্রাণ হারান ১৭৬ আরোহীর সবাই।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri