buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort rize escort sinop escort usak escort trabzon escort

পেকুয়ায় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির বিরুদ্ধে অনাস্থা দিবে আ’লীগ

pekua-alg.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(৪ মার্চ) :: কক্সবাজারের পেকুয়ায় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিবের বিরুদ্ধে অনাস্থা দিবে আ’লীগ। অর্ন্তবর্তীকালীন ওই কমিটির জৈষ্ট্য নেতারা এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নিতে প্রক্রিয়া গ্রহন করেছে। যেকোন সময়ে জরুরী বৈঠক ডেকে উপনীত হতে পারেন সিদ্ধান্তে। দলের পুনঃগঠন প্রক্রিয়ার জন্য পেকুয়ায় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি আত্মপ্রকাশ পেয়েছে।

ওর্য়াড ও ইউনিয়ন সমুহের কমিটি গঠন করার জন্য অন্তবর্তীকালীন এ কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তৃনমুল পুনঃগঠনসহ উপজেলা আ’লীগের ও ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ও কাউন্সিল প্রক্রিয়া সমাপ্ত করবেন। তবে এ কমিটি গঠিত হওয়ার শুরুতেই প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। জেলা আ’লীগ দলের অন্ত:কোন্দল থামাতে এ কমিটি অনুমোদন দিয়েছিলেন।

১ম দফায় ৩১সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষিত হয়েছে। আত্মপ্রকাশের সাথেই কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত একজনকে নিয়ে তোলপাড় চলছিল। লায়ন মুজিবুর রহমানকে ওই কমিটিতে ঠাই দেয়। এ নিয়ে আ’লীগের রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপক তর্ক ও বির্তক দেখা দেয়। জামাত-বিএনপি সমর্থিত ওই ব্যক্তিকে কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করেছে। এ নিয়ে দলটির কর্মী সমর্থকদের মধ্যে প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় উঠে। গনমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর বিরুদ্ধে প্রচন্ড প্রতিবাদ হয়েছিল। ক্ষমতাসীন দল আ’লীগ এক বিব্রতবোধ অবস্থায় পড়ে। বিপুল টাকা নিয়ে তাকে কমিটিতে স্থান দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে সমালোচনাও হয়েছে। উদ্ভট পরিস্থিতি এড়াতে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক আবু হেনা মোস্তফা কামাল এ সংক্রান্ত বিবৃতি দেন।

পরবর্তীতে পেকুয়ায় আরেক মুজিবুর রহমানকে ওই কমিটির সদস্য হিসেবে পরিচয় দেয়। দলটির দায়িত্বশীল নেতারা জানায় কেন্দ্রীয় আ’লীগের কঠোরতাকে থামাতে মুলত আরেক ব্যক্তিকে লায়ন মুজিবের স্থলে পরিচয় দিচ্ছে। এখন কোন মুজিব সেটি অমিমাংসিত। লায়ন মুজিব ১ম দিকের কয়েকটি বৈঠকে অংশও নিয়েছিলেন। পরে শেখেরকিল্লাহ ঘোনার মুজিব বৈঠকে যোগ দিচ্ছে। বশির আহমদ ও বশির আলমকে নিয়েও দোদুল্যমান অবস্থায় থাকতে দেখা গেছে। একপক্ষ দাবি করছিলেন ঘোষিত কমিটির সদস্য হয়েছেন উপজেলা আ’লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শিলখালীর বশির আহমদ। আরেকটি পক্ষের যুক্তি ছিল এ বশির সেই বশির নয়। পেকুয়ার বশির আলমকে কমিটিতে সদস্য করে। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটিতে স্থান পাওয়া বেশ কয়েকজন বিতর্কিত ব্যক্তিকে নিয়ে তুমুল প্রশ্নবিদ্ধ দেখা গিয়েছিল। কিছু অযোগ্য ব্যক্তিকে কমিটিতে ঠাই দেয়।

এদের মধ্যে অপরিচিত ব্যক্তির সংখ্যা বেশি। আবার কিছু কিছু জনপ্রিয় সংগঠককে ওই কমিটি থেকে দুরে রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে ওই কমিটিতে আরো ৪জনকে মুল্যায়ন করে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন দেয়। কমিটিতে বাদ পড়েন কিছু হেভিওয়েট ব্যক্তি।

রাজাখালীর আ’লীগের সভাপতি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক নুরুল ইসলাম বিএসসি, পেকুয়ার সাবেক চেয়ারম্যান জেলা আ’লীগ নেতা এড.কামাল হোসেন, অভিবক্ত মগনামার সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি খাইরুল এনাম,উপজেলা আ’লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহ নেওয়াজ চৌধুরী বিটুসহ আরো কয়েকজন গুরুত্বপুর্ন রাজনীতিবিদ। সম্প্রতি একটি গোপনে ইউনিয়ন কমিটি অনুমোদনকে কেন্দ্র করে পেকুয়ায় আ’লীগের মধ্যে দ্বিধা দ্বন্ধ দেখা দিয়েছে। এর জের ধরে আ’লীগ চরম প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে।

কাউন্সিল ও সম্মেলন ছাড়া একটি পকেট কমিটি ঘোষিত হয়েছে। এর পক্ষে ও বিপক্ষে বক্তব্য ও যুক্তি তৈরি হয়েছে। দু’জন দাগী ও বিতর্কিত ব্যক্তিকে কেন আ’লীগের কমিটি হস্তান্তর করা হয়েছে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে পড়তে হয়েছে আ’লীগ।

ছৈয়দনুর নৌকার বিপক্ষে ভোট করে ইউপি চেয়ারম্যান হয়েছে। নাছির উদ্দিনও আ’লীগের বিপক্ষের শক্তি ছিল। জোট সরকারের সময়ে নাছির উদ্দিন ও হারুনুর রশিদকে শ্রমিক সংগঠনের দায়িত্ব দিয়েছিলেন সাবেক মন্ত্রী সালাহ উদ্দিন আহমদ। সিএনজির শ্রমিক সংগঠনের দায়িত্ব ছিল এ দু’জনের উপর। নাছির অনুপ্রবেশকারী। ছৈয়দনুর ২০১৩সালে অন্তবর্তীকালীন সরকারের দাবি নিয়ে বিএনপি জামাতের পক্ষে সড়কে পিকেটিং করে। সে সময় আ’লীগের নেতাকর্মীদের উপর এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে।

সবুজ বাজারে সে সময় রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। আ’লীগের পক্ষে ছিলেন চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল। আর বিএনপি জামাতের পক্ষে ছিলেন ছৈয়দনুর তার ছোট ভাই ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, আরেক ভাই উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি নুরুল আবছার বদু। ছৈয়দনুর ও নাছিরকে কমিটি দিয়ে চরম বেকায়দায় পড়েছে আ’লীগ।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির নেতারা জানান,এ কমিটি ভুঁয়া। সম্মেলন ছাড়া কমিটি দেয়ার এখতিয়ার নেই।

জেলা আ’লীগ নেতা ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য এস.এম গিয়াস উদ্দিন জানান, আমরা আহবায়ক ও সদস্য সচিবের আচরন নিয়ে চরমভাবে হতাশ হয়েছি। প্রস্তুতি কমিটি সম্মেলন ও কাউন্সিল আহবান করতে পারে। কিন্তু গনতন্ত্রের চর্চা ছাড়া সম্মেলন ও কাউন্সিল বিহীন কমিটি দেয়ার এখতিয়ার রাখেনা। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এ হটকারীতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা হচ্ছে এ দু’জনের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনা। জেলা আ’লীগ নেতা প্রস্তুুতি কমিটির সদস্য জি.এম কাসেম জানান, দু’জনে যদি কমিটি ঘোষনা করতে পারে আর রাজনীতিতে নীতি নির্ধারনী ফোরামের দরকার কি?। আ’লীগের কমিটি যেভাবে বেচাবিক্রি করছে আমরা আজীবন যারা রাজনীতি করেছি তারা ব্যার্থ। এ দু’জনের বিরুদ্ধে অনাস্থার জন্য সিদ্ধান্তের দিকে যাচ্ছি।

জেলা আ’লীগ নেতা উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান উম্মে কুলসুম মিনু বলেন, এদের কর্মকান্ড দেখে ঘৃনা লাগে। রাজাখালী আমার এলাকা। মানুষ ছিঃছিঃ করছে। আমরা এক যুগে এদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক পদক্ষেপ নিব। টইটং ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান প্রস্তুতি কমিটির সদস্য শহিদুল্লাহ বিএ জানায়, হয় আমাদেরকে পদত্যাগ করতে হবে না হয় এদেরকে অপসারন করতে হবে। উপজেলা আ’লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এটিএম বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানায়, নীতি ও মুল্যবোধ বলতে কিছু নেই। টাকা দিলে বিএনপি জামাতকে আ’লীগ পরিচয় দেয়া হচ্ছে। আমরা এ কমিটির দু’জনের উপর আস্থা হারিয়েছি।

প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল ও আবুল কাসেম আযাদ জানায়, আমরা এটিকে প্রহসন ও অবিচার মনে করছি। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়কসহ দু’জনের বিরুদ্ধে অনাস্থা দিব। ১৩ লক্ষ টাকা দিয়ে পকেট কমিটি দিয়েছে। বাটপারদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা চাই।

সদর আ’লীগের সম্পাদক ও প্রস্তুতি কমিটির সদস্য বেলাল উদ্দিন বিএসসি,আবু তালেব, ওয়াহিদুর রহমান ওয়ারেচী, আবুল হোসেন শামা, তৌহিদুল ইসলাম তোহা, ফরহাদ ইকবাল, মুজিবুর রহমান, চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, কাজিউল ইনসান, বশির আহমদ, খানে আলম, বেলাল উদ্দিন আহমদ, মুফিজুর রহমান, আবুল শামা শামীম, মো.জাকিরুল ইসলাম জানান, আমরা অনাস্থা প্রস্তাব আনার জন্য সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছি। কমিটি ঘোষিত হয়েছে, সে বিষয়ে আমরা কিছু জানিনা। আমাদের নাম ব্যবহার করে কিছু বক্তব্য সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব দিয়েছেন। তা সত্য নয়। আমাদের উদৃতি ব্ল্যাকমেইলিং করা হয়েছে। মুল ধারাকে বাদ দিয়ে আমরা গুটি কয়েককে সুবিধা দেয়ার জন্য অসাংগঠনিক কার্যক্রমে লিপ্ত থাকতে পারিনা। দু’ ব্যক্তির দায় সংগঠন নিবেনা।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri