buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort

করোনায় ভাইরাসে মৃত্যুপুরী ইতালি : মৃত ছাড়াল ৫ হাজার

iraly-coronavirus-lockdown.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২২ মার্চ) :: চিনে শুরু হয়েছিল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ। কিন্তু অদ্ভুতভাবে সেই দেশের মৃত্যুর সংখ্যাকেও ছাপিয়ে যাচ্ছে ইতালি। পাঁচ হাজার ছুঁতে চলেছে মৃত্যুর সংখ্যা। রীতিমত আতঙ্কিত গোটা দেশ।

রবিবার পর্যন্ত ইতালিতে মোট মৃতের সংখ্যা ৫,৪৭৬। এদিন মৃত্যু হয়েছে ৬৫১ জনের। শনিবার মৃত্যূ হয়েছিল রেকর্ড ৭৯৩ জনের। মাত্র এক মাস আগে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে সেখানে। আর তারপরই লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে সংখ্যাটা।

ইতালিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৫৯ হাজার ১৩৮ জনে। সবথেকে খারাপ চিত্র ইতালির লমবার্ডিতে। সেখানে ৩ হাজার ৪৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২৭ হাজার ৬ জন।

মনে করা হচ্ছে, সেখানে প্রথম থেকে সেভাবে সচেতনতা না নেওয়াতেই পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করতে শুরু করেছে।বর্তমানে সেখানকার হাজার হাজার মানুষকে চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতালগুলো। সেখানে সহায়তা দিচ্ছেন চীনের মেডিক্যাল বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, লোমবার্ডিতে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা যথেষ্ট কঠোর নয়। ভাইরাসটির বিস্তার ঠেকাতে লকডাউন কার্যকর করে নাগরিকদের ঘরে থাকতে বাধ্য করতে শুক্রবার থেকে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

শনিবার একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ডের পর দেশটিতে নিয়ন্ত্রণ আরও কঠোর করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে দেশজুড়ে ‘জরুরি নয়’ এমন সব ধরনের ব্যবসা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। তবে কোন ধরনের ব্যবসাকে জরুরি বলে বিবেচনা করা হবে তিনি তা পরিষ্কার করেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স। এছাড়া বাড়ির বাইরে সব ধরনের খেলাধুলা ও ব্যায়াম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি ভেন্ডিং মেশিনের ব্যবহারও নিষিদ্ধ করা হয়েছে ।

এদিকে পরিসংখ্যানবিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ডোমিটার্সের তথ্যমতে রবিবার রাত পর্যন্ত সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৩ লাখ ৩৭ হাজার ৭৫৪ জন। মারা গেছেন ১৪ হাজার ৪৪১ জন।বিশ্বের মোট ১৮৫টি দেশে মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। মৃত্যুর নিরিখে এই মুহূর্তে চিনকেও ছাপিয়ে গিয়েছে ইতালি৷

চিন থেকে গোটা বিশ্বে কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়েছে। চিনে করোনা ভাইরাসের আক্রমণের বলি ৩,২৪৫ জন। চিনে বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে থাকলেও বিশ্বের বাকি দেশগুলিতে রীতিমতো কাঁপুনি ধরিয়েছে মারণ এই ভাইরাস৷

যদিও মৃত্যুর সংখ্যায বেশি হলেও ইতালির থেকে চিনে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ। চিনে এখনও পর্যন্ত ৮০,৯২৮ জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে।

চিনে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৭০,৪২০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তবে এখনও ৭,২৬৩ জন চিনের একাধিক হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন৷ যদিও এই ভাইরাসের উৎসস্থল উহানে নতুন করে কোনও করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়নি গত তিনদিনে।

ইতালির পথেই স্পেন

এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের রেকর্ড ইউরোপের দেশ ইতালির। সেই পথেই এগিয়ে যাচ্ছে স্পেনও!

প্রতিদিনই নতুন রেকর্ড গড়ছে ইতালি। ২৪ ঘণ্টার হিসেবে সব হিসাব পেছনে ফেলছে তারা। মৃতের সংখ্যায় এখন ইতালির পরেই দেখা যাচ্ছে স্পেনকে।

রোববার দেওয়া কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে সর্বশেষ একদিনে ইতালিতে করোনায় মারা গেছে ৬৫১ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৪৭৬ জনে। এটাই এখন পর্যন্ত কোনো দেশের সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

করোনার উৎসস্থল চীনে ভাইরাসটিতে মারা গেছেন ৩ হাজার ২৬১ জন। এরপর ইতালি। আর সে পথেই এগিয়ে যাচ্ছে স্পেন। এই দেশে করোনায় ১ হাজার ৭৫৬ জন মানুষ মারা গেছে। ইতালিতে শেষ ২৪ ঘণ্টায় সংখ্যার হিসেবে যেখানে ৬৫১ জনের প্রাণ গেছে সেখানে একই সময়ে ৩৯৪ জনের প্রাণ গেছে স্পেনে।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে নিতে ইতালিতে এরই মধ্যে জরুরি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকানপাট ছাড়া সবই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ঘরে থাকতে বলা হয়েছে সবাইকে। দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করেছে স্পেনও। এই অবস্থা আরও ১৫ দিন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ।

গত ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে প্রথম করোনার অস্তিত্ব ধরা পড়ে; এরপর তা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। এই মহামারিতে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৩ হাজারের বেশি মানুষের; আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়েছে।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri