buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort rize escort sinop escort usak escort trabzon escort

করোনা আতঙ্কে কক্সবাজারের বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে তালা : ভোগান্তীতে রোগীরা

cic-shevron-cox.jpg

কক্সবাংলা রিপোর্ট(২৬ মার্চ) :: করোনাভাইরাস আতঙ্কে কক্সবাজার শহরের বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে ডাক্তাররা রোগী দেখছেন না। খোলা রাখার সরকারি নির্দেশনা থাকা সত্বেও উপায় না দেখে প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে মালিকরা। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে হাজার হাজার শিশু,মহিলা ও বয়োবৃদ্ধ রোগী।

শহরের কয়েকটি বেসরকারী হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনেস্টিক সেন্টার ঘুরে দেখা গেছে, ডাক্তাররা রোগী দেখছেন না। সেখানের দায়িত্বরতরা বলছেন ডাক্তার নেই। অনেক রোগী চিকিৎসা না নিয়ে ফেরত যাচ্ছেন। অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানকে নিয়ে এসেছেন ডাক্তার দেখানোর জন্য। অনেকে আবার নিজে এসেছেন ডাক্তার দেখাতে। কিন্তু ডাক্তার দেখাতে না পেরে ফিরে যাচ্ছেন।

বিভিন্ন হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনেস্টিক সেন্টারের একাধিক ডাক্তাররা জানান, ব্যক্তিগত সুরক্ষা না থাকায় বেসরকারি পর্যায়ে চেম্বারে রোগী দেখা বন্ধ করে দিয়েছি। অনেক প্রতিষ্ঠান পিপিই দিতে পারছে না। আমাদেরও তো সুরক্ষা দরকার। আমরা চেম্বার থেকে বাসায় যাবো। আমাদের পরিবার-পরিজন, সন্তান তাদেরও সেফটি দরকার।

শহরের এক রোগী ফিরোজ (৫৮) জানান,গত দুই দিনে কয়েকবার সিআইসিতে এসেছি,কিন্তু এটি বন্ধ থাকায় ডাক্তারের দেখা পাচ্ছি না। অথচ আমার হাই প্রেসার ও হার্টের সমস্যা।ডাক্তারের দেওয়া তারিখ বরাবর এসেও পাচ্ছিনা। শরীরও ভাল যাচ্ছে না।এখন কি করব বুঝে উঠতে পারছি না। দেখা গেছে তার মতো অনেক রোগী শহরের ক্লিনিকগুলো বন্ধ পেয়ে এবং ডাক্তার না পেয়ে ফেরত গেছে।তবে সবচেয়ে বিপদে পড়েছে শিশু রোগীরা।

তবে কয়েকজন শিশু রোগীর অভিভাবক জানালেন ফোনের মাধ্যমে তারা বাচচাদের চিকিতসা সেবা নিচ্ছেন।কিন্তু রোগ নির্ণয়ে পরীক্ষার জন্য ক্লিনিকগুলো বন্ধ রয়েছে।

এদিকে কক্সবাজারের বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে রোগীরা চিকিতসা বঞ্চিত হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।কেউ কেউ লিখেছেন ওরা অসাধু ব্যবসায়ী,তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হোক,এরা জাত লোটেরা ব্যবসায়ী,স্বার্থপর ও মুনাফাখোর এদেরকে আইনের আওতায় আনা হউক,ওরা সুবিধাবাদী,লাইসেন্স লকডাউন করা হওক,এরা সুসময়ের বন্ধু,আইনের আওতায় আনতে হবে,হাসপাতাল বন্ধ করে পালিয়েছে সুবিধাবাদী ডাক্তার-কর্তৃপক্ষ ইত্যাদি।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, ব্যক্তিগতভাবে ডাক্তাররা যদি প্রাইভেট চেম্বারে রোগী না দেখেন, তা অবশ্যই দুঃখজনক। দেশের এই পরিস্থিতিতে অন্যান্য রোগের রোগীও আছে। তাদেরও চিকিৎসা দরকার। বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri