buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort rize escort sinop escort usak escort trabzon escort

‘শিথিল’ লকডাউনে বাংলাদেশে মৃত্যূর মিছিল : করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু ৯২৯ জন

corona-virus-bangladesh-dead-2.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১৩ মে) :: রাজধানী ঢাকা নিরাপদ নেই। কম করেও ৭ হাজারের বেশি করোনা রোগী চিহ্নিত। আর কতো যে এখনও অ-চিহ্নিত তার হিসেব নেই। এরই মাঝে লকডাউনে শিথিলতার নির্দেশে বিপদ আরও বাড়ছে। সবমিলে দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বাধিক করোনা সংক্রমণ ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) আগেই সতর্কতা দিয়ে বলেছিল করোনাভাইরাসে দক্ষিণ এশিয়ায় বিপদের সম্ভাবনা প্রবল। আর বাংলাদেশ প্রবল ঝুঁকির মধ্যে থাকবে। সেই হিসেব মিলছে।

এরই মাঝে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ (সিজিএস) এক গবেষণা প্রতিবেদনে জানিয়েছে,দেশে করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ৮ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত ৯২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ইউএনডিপির আর্থিক সহায়তায় বাংলাদেশ পিস অবজারভেটরি এবং সিজিএস ১২মে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

সেন্টার ফর জেনোসাইডের পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘দেশের ১৬টি দৈনিক পত্রিকার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রতি সপ্তাহে সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ থেকে এই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।’

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, ৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৬৯  জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনা আক্রান্ত হননি এমন ৩৩ জন রোগী চিকিৎসকদের অবহেলায় মারা গেছেন।

বাড়ি থেকে জোর করে বের করে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে আটটি এবং পরিবার পরিত্যক্ত হয়েছেন ২৩ জন। দুজন সামাজিকভাবে হেয় হওয়ার শঙ্কায় আত্মহত্যা করেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনা ইস্যুতে ৭৯টি গুজব ছড়ানোর ঘটনা ঘটেছে এবং এজন্য ৮৪ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের আজকের তথ্য অনুযায়ী করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯ জন মারা গেছেন। এ পর্যন্ত ১ লাখ ৪৪ হাজার ৫৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে, দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের ভারতে মৃত সর্বাধিক- ২,৪০০ জনের বেশি। আক্রান্ত ৭৪ হাজার পার করেছে। আর তার পরেই সংক্রমণ সব থেকে বেশি বাংলাদেশে- ১৬,৬০০ জনের বেশি।

বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগ জানাচ্ছে, করোনার হামলায় রোগী মৃত্যুর পাশাপাশি বাড়ছে চিকিৎসক মৃত্যুর সংখ্যা। দেশের তিন বিশিষ্ট চিকিৎসক মারা গেলেন। বুধবার মৃত্যু হয়েছে বিশিষ্ট রেডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) আবুল মোকারিম মহম্মদ মহসিন উদ্দিনের।

তিনি ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের প্রধান ছিলেন। এর আগে করোনায় গত ১৫ এপ্রিল প্রথম মৃত্যু হয় ডা. মঈন উদ্দীনের।

তিনি সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ছিলেন। গত ৩ মে দেশের অন্যতম হেমাটোলজিস্ট এবং ল্যাবরেটরি মেডিসিন স্পেশালিস্ট অধ্যাপক কর্নেল (অব.) মহম্মদ মনিরুজ্জামানের মৃত্যু হয়।

এই নিয়ে বাংলাদেশে তিনজন চিকিৎসকের করোনায় মৃত্যু হলো। এদিকে সরকার লকডাউন শিথিল করায় করোনা সংক্রমণ আরও দ্রুত ছড়াচ্ছে বলেই ।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এমনিতেই লকডাউনের নিয়মাবলী মানছেন না অনেকে। ফলে শিথিলতা আনলে বিপদ বাড়বেই।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ হোসেন স্বপন জানিয়েছিলেন, দেশে করোনার সামাজিক সংক্রমণ রোধ করা যায়নি।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
en English Version bn Bangla Version
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri