buy Instagram followers
kayseri escort samsun escort afyon escort manisa escort mersin escort denizli escort kibris escort rize escort sinop escort usak escort trabzon escort

যুদ্ধের প্রস্তুতি,লাদাখ সীমান্ত জুড়ে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে মোতায়েন করল ভারত

missile-system.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(৩০ জুন) :: আলোচনার মাধ্যমেই লাদাখে দীর্ঘদিন ধীরে চলা সমস্যার সমাধান চাইছে ভারত। আর তাই দফায় দফায় চলছে আলোচনা। কিন্তু ভারত আলোচনা চাইলেও চিন যে চাইছে না তা কার্যত পরিষ্কার ভারতের কাছে। এখনও পর্যন্ত গানওয়াল থেকে সরেনি চিনের সেনাবাহিনী।

স্যাটেলাইটে ধরা পড়া ছবিতে দেখা গিয়েছে যে, ইতিমধ্যে গানওয়ালের ধারে ব্যাপক সেনা ছাউনি তৈরি করেছে বেজিং। শুধু তাই নয়, সেনা থেকে সামরিক সরঞ্জামও বাড়িয়ছে লালফৌজ। এই পরিস্থিতিতে ভারতও যে কোনও অংশে কম নয়, সেই শক্তি দেখাতে শুরু করে দিল। চিনের পালটা গালওয়ানে ভারী রণ-সরঞ্জাম ও অস্ত্রবহর বাড়াল ভারতীয় সেনাও।

আজ ফের একবার সীমান্ত সমস্যা মেটাতে বৈঠকে বসতে চলেছে ভারত এবং চিনের শীর্ষস্থানীয় সামরিক কমান্ডাররা। আলোচনার মাধ্যমে সুষ্ঠুভাবে সীমান্ত সমস্যা মেটানোই হবে প্রধান লক্ষ্য। কিন্তু এর আগেও একাধিকবার বৈঠক হয়েছে। সেই বৈঠক কার্যত ব্যর্থ হয়েছে বলাই যায়।

কারণ এখনও পর্যন্ত ঠাই দাঁড়িয়ে চিনের সেনাবাহিনী। আর তাই ভারত হাবেভাবে চিনকে সাফ বুঝিয়ে দিতে চায় যে শান্তি এবং আলোচনার রাস্তা খোলা থাকলেও যুদ্ধের জন্যেও প্রস্তুত। যে কোনও ধরনের মোকাবিলার জন্যে ভারত যে প্রস্তুত তা বোঝাতে ধীরে ধীরে লাদাখ সীমান্তে রণসজ্জা ভারতের।

চিনকে রুখতে কোমর বেঁধে নেমেছে ভার‍তও। লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন করা হয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনার প্রধান স্তম্ভ সুখোই-৩০এমকেআই। মোতায়েন করা হয়েছে কুইক রিয়্যাকশন ভূমি থেকে আকাশ (কিউআরস্যাম) “আকাশ” ক্ষেপণাস্ত্র। ইতিমধ্যে ভারত-চিন সীমান্তে পৌঁছে গিয়েছে টি-৯০ “ভীষ্ম” ট্যাংকও।

ভারতীয় স্থলবাহিনীর গর্বের ট্যাংক এটি। জানা যাচ্ছে এই ট্যাংকের দুটি রেজিমেন্টকে মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি ট্যাঙ্ক-বিধ্বংসী বাজুকাও মোতায়েন করেছে ভারত। গালওয়ান নদীর ধারে যে সমস্ত ঘাঁটি চিন তৈরি করেছে তা ধ্বংস করতে এই অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র মোতায়েন ভারতের। পাশাপাশি, চিনের ট্যাংক, সাঁজোয়া গাড়িগুলিও এই ট্যাংকের মাধ্যমে ধ্বংস করা সম্ভব।

ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, পূর্ব লাদাখের ১৫৯৭ কিলোমিটার দীর্ঘ প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা জুড়ে এখন ইনফ্যান্ট্রি কমব্যাট ভেহিকল (সাঁজোয়া) গাড়ি মোতায়েন করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে আর্টিলারিও। চিনুক কপ্টারে করে সীমান্তে মোতায়েন করা হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে কেনা “এম৭৭৭” ১৫৫ এমএম আল্ট্রা লাইট হাউইৎজার কামানও।

এখানেই শেষ নয়, লাদাখ সীমান্ত জুড়ে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে মোতায়েন করা হয়েছে। ইজরায়েলের থেকে কেনা “স্পাইডার” এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে মোতায়েন করা হয়েছে। সম্প্রতি, এই বিশেষ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম বন্ধু রাষ্ট্র থেকে ভারতে এসেছে। আরও জানা গিয়েছে, শীঘ্রই ইজরায়েলের আরেকটি ঘাতক “বারাক-৮” ভূমি থেকে আকাশ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রকেও মোতায়েন করতে চলেছে ভারত। এর জন্য আপৎকালীন ভিত্তিতে ইজরায়েলের থেকে এই মারণ ক্ষেপণাস্ত্র ধার নিয়েছে ভারত।

সাধারণত, বারাক-৮ হল অত্যাধুনিক দূরপাল্লার নৌসেনা জন্য তৈরি করা এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম (এলআরস্যাম)। এটি যৌথভাবে তৈরি করেছে ভারতের ডিআরডিও ও ইজরায়েলের এরোস্পেস ইন্ডাট্রিজের অধিনস্থ সংস্থা এলটা ও রাফায়েল অ্যাডভান্সড ডিফেন্স সিস্টেম।

ভারতীয় নৌসেনায় এই ক্ষেপণাস্ত্র ডেস্ট্রয়ার শ্রেণির রণতরীতে মোতায়েন রয়েছে। তবে স্থল ও বায়ুসেনার জন্য এই ক্ষেপণাস্ত্রের মাঝারি পাল্লার সংস্করণটি এখন পরীক্ষাস্তরে রয়েছে। তাই আপৎকালীন পরস্থিতিতে ইজরায়েল এই ক্ষেপণাস্ত্র থেকে ধার নিচ্ছে ভারত।

Share this post

PinIt
izmir escort bursa escort Escort Bayan
scroll to top
en English Version bn Bangla Version
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri